পঞ্চগড় ব্যাটালিয়ন (১৮ বিজিবি) এর অধীনস্থ বাংলাবান্ধা বিওপিতে অনুষ্ঠিত ‘‘বাংলাবান্ধা আইসিপি ও এলসিপি এর বিদ্যমান সমস্যাবলী এবং সফলতা অর্জনে ভবিষ্যত করণীয়’’ শীর্ষক সেমিনার প্রসংগে

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

অদ্য ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখ সকাল ১০০০ হতে ১২৪৫ ঘটিকা পর্যন্ত পঞ্চগড় ব্যাটালিয়ন (১৮ বিজিবি) এর অধীনস্থ বাংলাবান্ধা বিওপিতে ‘‘বাংলাবান্ধা আইসিপি ও এলসিপি এর বিদ্যমান সমস্যাবলী এবং সফলতা অর্জনে ভবিষ্যত করণীয়’’ শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে প্রধান অতিথী হিসেবে কর্ণেল মোহাম্মদ শামছুল আরেফীন, পিএসসি, সেক্টর কমান্ডার, সেক্টর সদর দপ্তর, ঠাকুরগাঁও উপস্থিত ছিলেন। সেমিনারের সঞ্চালক হিসেবে লেঃ কর্ণেল খন্দকার আনিসুর রহমান, পিএসসি, জি+, অধিনায়ক, পঞ্চগড় ব্যাটালিয়ন (১৮ বিজিবি) ছাড়াও লেঃ কর্ণেল এস এন এম সামীউন্নবী চৌধুরী, পিবিজিএম, পিবিজিএমএস, অধিনায়ক, ঠাকুরগাঁও ব্যাটালিয়ন (৫০ বিজিবি), লেঃ কর্ণেল মোঃ শাহ আলম সিদ্দিকী, অধিনায়ক, নীলফামারী ব্যাটালিয়ন (৫৬ বিজিবি) উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও অতিথি বক্তা হিসেবে জনাব মোঃ ইছাহক আলী, রাজস্ব কর্মকর্তা, বাংলাবান্ধা স্থল শুল্ক ষ্টেশন, তেঁতুলিয়া, পঞ্চগড়, জনাব মোঃ ইজার উদ্দিন, অফিসার ইনচার্জ, বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেকপোষ্ট, তেঁতুলিয়া, পঞ্চগড়, জনাব মোঃ মামুন সোবহান, ম্যানেজার, বাংলাবান্ধা ল্যান্ড পোর্ট লিমিটেড, তেঁতুলিয়া, পঞ্চগড় উপস্থিত ছিলেন। সেমিনারে ইলেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ার সদস্যগণ ছাড়াও প্রায় ১৫০-২০০ জন বিজিবি সদস্য উপস্থিত ছিলেন। 

সেমিনারের সঞ্চালক ও বক্তা লেঃ কর্ণেল খন্দকার আনিসুর রহমান, পিএসসি, জি+, অধিনায়ক, পঞ্চগড় ব্যাটালিয়ন (১৮ বিজিবি) বলেন, বাংলাদেশের সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড় এর তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা ইউনিয়নে বিদ্যমান বাংলাবান্ধা আইসিপির যাত্রা আইসিপি হিসেবে প্রায় নতুন এবং এটি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের অগ্রযাত্রার ক্ষেত্রে সহায়ক একটি অতীব গুরুত্বপূর্ণ স্থান। এখানে বিদ্যমান বাংলাদেশ সরকারের প্রতিটি সংস্থা সমন্বয়ে কাজ করলে একদিকে যেমন সরকার সঠিকভাবে রাজস্ব প্রাপ্ত হবে অন্যদিকে বাংলাবান্ধা আইসিপি দিয়ে যে কোন ধরণের চোরাচালান ও মাদকদ্রব্যের প্রবেশ সম্পূর্ণরুপে রোধ করা সম্ভব হবে মর্মে তিনি সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা ও সহযোগিতার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। 


সেমিনারে প্রধান অতিথী  কর্ণেল মোহাম্মদ শামছুল আরেফীন, পিএসসি, সেক্টর কমান্ডার, সেক্টর সদর দপ্তর, ঠাকুরগাঁও বলেন, বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে নিয়োজিত সকল সংস্থা যৌথভাবে কাজ করলে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় বাংলাবান্ধা আইসিপি সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করবে। তিনি নতুন নতুন কৌশল অবলম্বন পূর্বক, বিজিবি সদস্যদের প্রশিক্ষনের মান উন্নয়ন এবং নতুন নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে কর্তব্য পালনের জন্য উদ্ধুব্দ করেন। বাংলাদেশের স্বার্থ, সার্বভৌমত্ব ও স্বকীয়তা রক্ষায় বাংলাবান্ধা আইসিপিতে নিয়োজিত সকল সংস্থার সম্মিলিত সহযোগিতায় দৃপ্ত পদক্ষেপে সামনে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।  

এছাড়াও সেমিনারের অন্যান্য বক্তরা তাদের জ্ঞানগর্ভ ও অভিজ্ঞতালদ্ধ বক্তব্য উপস্থাপনের মাধ্যমে বিদ্যমান সমস্যা ও আশু সমাধানের দিক নির্দেশনা আলোচনা করেন এবং সম্মিলিতভাবে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।