শত কোটি টাকায় ৯টি সাব স্টেশন নির্মাণ হচ্ছে বগুড়ায়

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

আগামী বছর বগুড়ায় জেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ আরও বাড়ছে। গ্রাহকদের বর্তমান চাহিদার সঙ্গে আরও প্রায় ১৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হবে নতুন বছরের জানুয়ারি থেকে। লো ভোল্টেজ ও লোড শেডিং দূর করতে এই মেগাওয়াট প্রদানের জন্য নির্মাণ করা হচ্ছে ৯টি সাব-ষ্টেশন।

বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা আশা করছেন, জানুয়ারি মাসের মধ্যে কাজ শেষ করে ফেব্রুয়ারির মধ্যে এই বাড়তি বিদ্যুৎ সরবরাহ করার। সে লক্ষ্যে সাব স্টেশনের নির্মাণ কাজগুলো শুরু হয়েছে।

বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্প রাজশাহী জোনের বগুড়ার নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, বগুড়ায় মোট ৯টি সাব স্টেশনের কাজ শুরু হয়েছে। বগুড়া শহরের মাটিডালি দ্বিতীয় বাইপাস সড়কের পাশে এক একর জায়গা নিয়ে সাব স্টেশনের অবকাঠামো নির্মাণের কাজ চলছে। এই সাব স্টেশনে জাতীয় গ্রিড থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ হবে ১০ মেগাওয়াট। জেলা শহরের বনানীর বাইপাস রোডের সুজাবাদ মৌজায় ৯০ শতাংশ জমিতে সাব স্টেশনে ২০ মেগাওয়াট, গোদারপাড়া ছয়পুকুরিয়া মৌজায় ২০ মেগাওয়াট এর জন্য সাব স্টেশন নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। এছাড়া জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার মহাস্থানে ১০ মেগাওয়াট, দুপচাঁচিয়া উপজেলা শহরের চ্যাঙ্গা মৌজায় ২০ মেগাওয়াট, তালোড়া বন্দরে ১০ মেগাওয়াট, আদমদিঘি উপজেলায় ২০ মেগাওয়াট ও সান্তাহারে ২০ মেগাওয়াট এবং জয়পুরহাটে ২০ মেগাওয়াটের সাব স্টেশন নির্মাণ করা হচ্ছে। রাজশাহী জোনের আওতায় হওয়ায় জয়পুরহাটে নির্মাণ কাজটিও বগুড়া থেকে তদারকি করা হবে। জেলায় গ্রীষ্মকালে মোট বিদ্যুতের চাহিদা থাকে ১৫০ মেগাওয়াট এবং শীতকালে ৯৫ থেকে ১০০ মেগাওয়াট। 

 

আর নুতন সাব স্টেশন নির্মাণ করার পর গ্রাহকদের সেবা দেওয়া শুরু করলে মোট বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারবে ১৩০ মেগাওয়াট। সে হিসেবে বগুড়ায় কোনও বিদ্যুতের সমস্যা থাকছে না বলে বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা দাবি করেছেন।

তারা বলছেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং অন্যান্য টেকনিক্যাল সমস্যা না থাকলে বগুড়ায় বিদ্যুতের যে সমস্যা তা আর থাকবে না। বাড়তি বিদ্যুতের চাহিদাও পূরণ করা সম্ভব হবে এই সাব স্টেশনের মাধ্যমে।

বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্প রাজশাহী জোনের বগুড়ার নির্বাহী প্রকৌশলী উৎপল কুমার সাহা জানান, বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করতে বর্তমান সরকারের অন্যতম লক্ষ্য ২০২১ সালের মধ্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া। সে লক্ষ্য বাস্তবায়নে বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভেলপমেণ্ট বোর্ড (পিডিবি)’র আওতাধীন বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্প সারা দেশের ন্যায় বগুড়াতেও কাজ করছে। বগুড়ার আওতায় মোট ৯টি সাব স্টেশন নির্মাণ কাজ শুরু হল। আগামী জানুয়ারি থেকে ফেব্রুয়ারির মধ্যে এই সাব স্টেশন চালু হবে। চায়না ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এই নির্মাণ কাজ করছে। সাব স্টেশনগুলোর মধ্যে ভাগ রয়েছে কিছু রয়েছে গ্যাস ইনসুলেটেড সুইচ গিয়ার এবং এয়ার ইনসুলেটেড সুইচ গিয়ার। গ্যাস ইনসুলেটেড সুইচ গিয়ার একটি সাব স্টেশন নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ১৭ কোটি টাকা এবং এয়ার ইনসুলেটেড সুইচ গিয়ার প্রতিটি সাব স্টেশন নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ১৩ কোটি টাকা। সব মিলিয়ে প্রায় ১২০ কোটি টাকার কাজ করা হবে বিদ্যুতের উন্নয়নে।

সাব স্টেশনের জন্য প্রয়োজনীয় জমি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে অধিগ্রহণ করা হয়। সেই অধিগ্রহণকৃত জমিতেই এখন সাব স্টেশন নির্মাণ কাজ করা হচ্ছে। প্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ লাইন স্থাপন প্রায় শেষ পর্যায়ে। তবে এই সব কাজ বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এর মধ্যে বৈদ্যুতিক পোল ও ট্রান্সফরমার স্থাপনে স্থানীয়দের বাঁধা, নতুন লাইন নির্মাণ ও পুনবার্সনে গাছের ডালপালা কাটতে বাঁধা দেওয়া হচ্ছে।

এছাড়া সারা দেশে একযোগে কাজ শুরু হওয়ায় দক্ষ বিদ্যুৎ শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে। সাব স্টেশনগুলোর প্রতিটিতে অফিস ভবন, কনট্রোল রুম ভবন, সাব-স্টেশন এবং সীমানা প্রচীর নির্মাণ করা হবে। 

এছাড়া, নতুন লাইন নির্মাণ এবং পুরাতন লাইন পুনর্বাসনের কাজ চলছে। প্রকল্পটি বাস্তাবায়িত হলে বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীরা লোড শেডিং, লো-ভোল্টেজ এবং সিস্টেম লস-এর ভোগান্তি থেকে রেহাই পাবেন। সেই সঙ্গে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছার কাজটি আরও এক ধাপ এগিয়ে যাবে।