অস্ট্রেলিয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শোক দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শোক দিবস পালন করলো অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

রোববার (২০ অক্টোবর) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জগন্নাথ হল অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়া। 

দেশটির বাণিজ্যিক রাজধানী সিডনির ওয়েন্টওয়ার্থ ভিলের ব্যারন কমিউনিটি সেন্টারে অসংখ্য মানুষের উপস্থিতিতে শোক দিবসের আবহে এ দিনটি স্মরণ করা হয়।

১৯৮৫ সালের ১৫ অক্টোবর রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) জগন্নাথ হলের টিভি রুমের ছাদ ধসে ৪০ জন শিক্ষার্থী, কর্মচারী ও অতিথির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। এরপর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ দিনটিকে ঢাবি শোক দিবস হিসেবে ঘোষণা করে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করে এক মিনিট নিরব প্রার্থনা করা হয়। এরপর ভক্তিগীতি ও কোরাস গেয়ে ওই ঘটনার তাৎপর্য ফুঁটিয়ে তোলার চেষ্টা করা হয়। 

সংগীত পরিবেশন করেন- জ্যোতি বিশ্বাস, পলাশ বসাক, অদিতি রাউথ, বর্ণালী রায় ও সিরাজুস সালেকিন। এরপর উপস্থিত বক্তারা ঢাবি শোক দিবসের ইতিহাস ও কার্যকারণ নিয়ে আলোচনা করেন।

অনুষ্ঠানে আবৃত্তি করেন কুবিতা রায় ও সজল রায় । এছাড়া অস্ট্রেলিয়ায় জন্ম নেওয়া বাঙালি শিশু-কিশোররা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য ও শোক দিবসের অনুষঙ্গ তুলে ধরে চিত্রাঙ্কন করে। যা দেয়ালে টাঙিয়ে দেওয়া হয় । 

সুদর্শন দাসের সভাপতিত্বে এবং নির্মল চৌধুরী ও চন্দ্রা বাড়ৈর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ক্যানবেরাস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনের কনসাল জেনারেল খন্দকার মাসুদুল আলম। আয়োজনে আরও উপস্থিত ছিলেন- ঢাবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি লিংকন শরীফ উল্লাহ, রোকেয়া হলের প্রতিনিধি রীনা দাস, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) প্রতিনিধি দিলিপ দত্ত ও সৌমেন চক্রবর্তী, মুক্তমঞ্চের প্রতিনিধি নোমান শামীম এবং সিডনির কাম্বালান্ড কাউন্সিলের কাউন্সিলর সুমন সাহা।

সবশেষে আয়োজনের অতিথি, জগন্নাথ হল অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন অস্ট্রেলিয়ার সদস্য ও তাদের পরিবারের সদস্যরা মোমবাতি প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে নিহত সবার আত্মার শান্তি কামনা করেন।