কুড়িগ্রামের কচাকাটা থেকে বিরল প্রজাতির বনরুই উদ্ধার কুড়িগ্রাম

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

নাগেশ্বরী উপজেলার কচাকাটা থানার পূর্বকেদার সীমান্ত এলাকা থেকে একটি বিরল প্রাণি বনরুই উদ্ধার করেছে কচাকাটা থানা পুলিশ । পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় অভিযান চালিয়ে থানার বলদিয়া ইউনিয়নের পূর্বেেকদার গ্রামের আব্দুল খালেকের বাড়ির উত্তর দিকে ধান ক্ষেত থেকে বস্তা বন্দি অবস্থায় এ বিরল প্রজাতির প্রাণীটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। শুক্রবার ১১টার দিকে বনরুইটি বনবিভাগের নিকট হস্তান্তর করা হয়। এ বিষয়ে কোন মামলা হয়নি তবে একটি জিডি হয়েছে। কচাকাটা থানার ওসি (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম জানায়, অভিযানকালে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে চোরাকারবারীরা বনরুইটি ধান ক্ষেতে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে এটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। কচাকাটা থানার ওসি মামুন অর রশিদ জানান, বন্যপ্রাণী উদ্ধারের একটি জিডি করা হয়েছে এবং নাগেশ্বরী বনবিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নাগেশ্বরী বন কর্মকর্তা সাদিকুর রহমান শাহীন জানান, বনরুইটি রংপুর বিভাগীয় বনকর্মকর্তার কার্যালয়ে পাঠানো হবে। সেখান থেকে মৌলভীবাজার বনাঞ্চলে এটাকে মুক্ত করা হবে।
এলাকাবাসী জানায়, বলদিয়া ইউনিয়নের পূর্বকেদার সীমান্ত এলাকা হওয়ায় একটি চোরাচালান চক্র ভারত থেকে এসব প্রাণী এনে ঢাকায় চড়া মূল্যে বিক্রি করেন। এই চক্রের বেশ কয়েকজন সদস্য রয়েছে। তাদের মধ্যে উল্লেখ যোগ্যরা হলেন কাশিমবাজার ছনবান্দা গ্রামের মৃত মনছের আলীর সন্তান আব্দুর রশিদ, খুটামার গ্রামের আব্দুর রহিম, আব্দুল করিম, পূর্বকেদার গ্রামের মোখলেছুর রহমান, ফকির বাদশা ও ওবাইদুল ইসলাম।
নাম না প্রকাশের শর্তে একজন ওয়ার্ড সদস্য বলেন, উদ্ধার হওয়া বনরুইটি ফকির বাদশা ও ওবাইদুল ভারতের আসাম থেকে নিয়ে আসে এবং বিক্রির উদ্দেশে নিয়ে যেতে পুলিশ উদ্ধার করে।
উল্লেখ্য চলতি বছর ২৩মে একই ইউনিয়নের কাশেম বাজার এলাকার আব্দুর রশিদের বাড়ি থেকে একটি এবং ৮ই সেপ্টম্বর নাগেশ্বরীর হাসেমবাজার এলাকা থেকে একটি বনরুই উদ্ধার করে পুলিশ।