দুর্নীতির ছদ্মনামই হচ্ছে আওয়ামী লীগ : রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা আছে এফবিআইয়ের এমন একটি প্রতিবেদনের উল্লেখ করে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ একটি দুর্নীতিপরায়ণ দল, আসলে দুর্নীতির ছদ্মনামই হচ্ছে আওয়ামী লীগ।’

আজ শনিবার সকালে দলের নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন।

বিএনপির জ্যৈষ্ঠ এ যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘জনশ্রুতি আছে যে, রিজার্ভ চুরির পেছনে বাংলাদেশ ব্যাংকে এমন একজন ক্ষমতাধর ব্যক্তি আছেন যার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের ক্ষমতা সরকারের নেই। বাংলাদেশ নামক স্টেটের ওপরে সুপারস্টেট কার্যকর আছে বলেই জনগণের টাকা হাওয়ায় মিলিয়ে যায়। এই সুপারস্টেট কারা তা জনগণ জানে। তাদের ঘাটলে নাকি সরকারের গদিও নড়ে যাবে।’

‘দলের পক্ষ থেকে আমরা যে অভিযোগ করেছিলাম সেটিও এখন সত্য হয়ে দাঁড়িয়েছে’ মন্তব্য করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘এফবিআই জানিয়েছে, বিশ্বের সর্ববৃহৎ রিজার্ভ চুরির ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের নাম প্রকাশের কাছাকাছি পৌঁছেছে তারা। নাম প্রকাশের পরই আসলে এর সঙ্গে কারা জড়িত তা জাতির সামনে প্রকাশিত হয়ে যাবে।’

অর্থমন্ত্রীর সমালোচনা করে বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘অর্থমন্ত্রী কেন এতবড় ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় তদন্ত প্রতিবেদন এত বছর ধরে আটকে রেখেছেন এফবিআইয়ের রিপোর্টে সেটি পরিষ্কার। আওয়ামী ক্ষমতাসীনরা সাধারণ মানুষের টাকা চুরির উন্নয়ন ছাড়া আর কোনো উন্নয়নই করেনি। এত বড় একটা চুরি-চোট্টামি হলো অথচ সরকারের কোনো অনুশোচনা নেই।’

সলিডারিটি গ্রুপ ফর বাংলাদেশ, হিউম্যান রাইটস এশিয়াসহ বেশ কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠনের প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘মানবধিকার সংগঠনগুলোর বিবৃতিতে বাংলাদেশের মানবধিকার পরিস্থিতির যে ভযাবহতা তুলে ধরা হয়েছে বাস্তবে তা আরো ব্যাপক। শুধু রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হওয়ায় আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মিথ্যা সাজানো মামলায় কারাগারে বন্দি রাখা হয়েছে। এমনকি সরকারি নির্দেশে তার জামিন স্থগিত করে রাখাও মানবধিকারের চূড়ান্ত লঙ্ঘন।’

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব আরো বলেন, শুধু শেখ হাসিনার ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করতেই সরকারি সহিংসতার ব্যাপক রূপ ধারণ করেছে। মত প্রকাশের স্বাধীনতা কেড়ে নিয়ে গণতন্ত্রকে লোহার শিকলে বন্দি করে রেখেছে বর্তমান সরকার।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খাইরুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সহসাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ প্রমুখ।