দেশ অগ্রসর হলেও আয়বৈষম্য কমেনি

March 12, 2020, 1:04 pm নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

নানামুখী প্রকল্প গ্রহণ ও সরকারের উদ্যোগে দারিদ্র্যের হার কমলেও দেশে আয়বৈষম্য বাড়ছে। ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীনের পর যে দারিদ্র্য ছিল, তা এখন কমেছে ঠিকই কিন্তু দূর হয়নি। ভবিষ্যতেও দূর করা সম্ভব হবে না। বরং ধনীর সঙ্গে দরিদ্রের আয়বৈষম্য প্রকট হচ্ছে। দেশকে এগিয়ে নিতে আয়বৈষম্য কমাতে হবে। দারিদ্র্য হ্রাস পেয়েছে ভেবে ঢিলেঢালা অবস্থান না নিয়ে সরকারকে আরো কাজ করতে হবে। দারিদ্র্যের সংজ্ঞায়নে আয়ের ভিত্তিতে বিশ্বব্যাংকের বেঁধে দেওয়া ধারণা থেকেও বের হয়ে আসতে হবে।

গতকাল বুধবার বিকেলে রাজধানীর বনানীতে গবেষণাপ্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) আয়োজিত অর্থনীতিবিদ ড. আকবর আলি খানের ‘দারিদ্র্যের অর্থনীতি : অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে অর্থনীতিবিদ, গবেষক ও বিশিষ্টজনরা এসব কথা বলেন।

বইটি প্রকাশ করেছে প্রথমা প্রকাশন। পাঁচ খণ্ডে বইয়ে ১৫টি অধ্যায় রয়েছে, যাতে দারিদ্র্যের অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ তুলে ধরেছেন লেখক ড. আকবর আলি খান। দেশ স্বাধীনের পর দারিদ্র্য নিরসনে কুমিল্লা মডেল, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি, এনজিও ভূমিকা, ব্র্যাকের ফজলে হাসান আবেদের ভূমিকা, ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম ও ইসলামী ব্যাংকের ভূমিকার কথা তুলে ধরেছেন। 

পিআরআই চেয়ারম্যান ড. জায়েদী সাত্তারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. ফরাসউদ্দিন। স্বাগত বক্তব্য দেন পিআরআই নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর।

ড. ফরাসউদ্দিন বলেন, ‘বাংলাদেশের অর্জন অসাধারণ। এখন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উন্নয়নে জোর দিতে হবে। অনেকে বলেছেন দেশে সুশাসন নেই, গণতন্ত্র নেই। আমি সবাইকে চ্যালেঞ্জ করছি—বাংলাদেশের সমান প্রবৃদ্ধি বা অর্থনৈতিক উন্নয়ন করছে এমন দেশ কোথায়, যেখানে বাংলাদেশের চেয়ে সুশাসন অনেক ভালো? বাংলাদেশের অর্জন অনেক সেটাও তো বলতে হবে।’