সুটকেসের ভেতর মৃতদেহ, ফেলে গেলো তরুণী

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

রাজধানীর সবুজবাগে সুটকেসের ভেতর থেকে এক ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় সিএনজিচালিত একটি অটোরিকশার ভেতর থেকে সুটকেসটি উদ্ধার হয়। সিএনজিচালকের দাবি,এক তরুণী বনশ্রী এলাকা থেকে নারায়ণগঞ্জের নয়াপুরা এলাকা যাওয়ার কথা বলে অটোরিকশাটি ভাড়া করে সুটকেসটি তোলে। পরে পূর্ব মাদারটেক প্রজেক্টের সামনে পানি কিনে আনার কথা বলে সিএনজি থেকে নেমে পালিয়ে যায়।

ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহটি সোমবার সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) মর্গে পাঠিয়েছে সবুজবাগ থানার পুলিশ। পরিচয়হীন নিহত ব্যক্তির বয়স আনুমানিক (৫৭)।      

সবুজবাগ থানার উপ পরিদর্শক মো. কামরুজ্জামান জানান, রবিবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে ২১/১, পূর্ব মাদারটেক প্রজেক্ট এর সামনে তিন রাস্তার মোড়ে আলমগীরের চায়ের দোকানের সামনে একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশা থেকে একটি কালো রঙের সুটকেস পাওয়া যায়। সুটকেসটির ওপরে ওড়না পেঁচানো ছিল ও স্কচ টেপ দিয়ে বাঁধা ছিল।

তিনি জানান, মৃতদেহটির গলায় রশি দিয়ে গিঁট দেওয়া ছিল।  তার হাঁটুতে সামান্য রক্ত জমাট ছিল। মুখে ছিল পাকা দাড়ি। সুটকেসের ভেতরে একটি কালো বোরখা পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, দুষ্কৃতকারীরা অজ্ঞাত স্থানে তাকে হত্যা করে এবং সুটকেসে করে তার মরদেহ ওই স্থানে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। 

সবুজবাগ থানার উপপরিদর্শক আরও জানান,সিএনজিচালকের বর্ণনা অনুযায়ী,শনিবার রাতে ২০/২১ বছরের এক তরুণী বনশ্রী এলাকা হতে একটি সিএনজি যোগে মাদারটেক প্রজেক্টের সামনে যায়।সেখানে তার সিএনজিটি থামিয়ে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও এলাকার নয়াপুর যাওয়ার কথা বলে ৫শত টাকায় আরেকটি সিএনজি ভাড়া করে। তরুণীটির সঙ্গে ছিল একটি সুটকেস। পরে ভাড়া করা সিএনজিচালককে তরুণীটি জানায়, সুটকেসের ভেতরে কাচের জিনিসপত্র আছে,সাবধানে ওঠাতে হবে। তার কথামতো  আরও  দুই সিএনজিচালকের সহায়তায় ভারি সুটকেসটি আগের সিএনজি থেকে পরেরটিতে ওঠানো হয়।

এরপর সিএনজিটি রওনা হয়, নয়াপুরের উদ্দেশে।

মো. কামরুজ্জামান জানান,রাত ৯টার দিকে সিএনজিটি নন্দিপাড়া ব্রিজমুখী সিসিলি গার্মেন্টস এর সামনে আসে। এসময় রাস্তায় যানজটও ছিল। সে সময় সিএনজি যাত্রী ওই তরুণী  সিএনজিচালক মজিবরকে বলেন, আমার পানির পিপাসা পেয়েছে, পানি কিনবো। তখন সিএনজিচালক সিএনজিটি এক পাশ করে রাখেন, আর ওই নারী পানির আনার জন্য নেমে যায়।  এরপর ঘণ্টাখানেক অপেক্ষায় করেও ওই নারী ফিরে না আসায় চালক নেমে আশপাশে খবর নেন।  এসময় একজন পথচারী বলেন, এক মেয়েকে দেখেছি দৌড়ে চলে যেতে। পরে চালকের মনে সন্দেহ জাগে। চালক আবার সিএনজি ঘুরিয়ে মাদারটেক প্রজেক্টের সামনে চলে আসেন এবং সুটকেসটিতে কী আছে তা জানতে প্রথমে নাড়াচাড়া করেন। তার দাবি, সুটকেসের চেইনের কিছু অংশ খুলে ফাঁক দিয়ে ভেতরে মানুষের মাথা দেখতে পান।এরপর থানায় খবর দেওয়া হয়।

পুলিশ কর্মকর্তা জানান, সংবাদ পেয়ে আমরা সেখানে যাই এবং উপস্থিত লোকজনের উপস্থিতিতে মৃতদেহটি উদ্ধার করি। নিহতের পরিচয় উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।