ট্রেনের অগ্রিম টিকিট নিতে নির্ঘুম রাত

June 3, 2018, 12:48 pm নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

ট্রেনের ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রির গতকাল ছিল দ্বিতীয় দিন। টিকিট নিতে রীতিমতো যুদ্ধ করতে দেখা গেছে টিকিট প্রত্যাশীদের। টিকিট পেতে মধ্যরাত থেকে কাউন্টারগুলোতে জড়ো হয়েছে মানুষ। অতিরিক্ত ভিড়ের কারণে হিমশিম খেতে হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও। গতকাল ১১ই জুনের টিকিট বিক্রি করেছে রেল কর্তৃপক্ষ। নির্ধারিত সময় সকাল ৮টা থেকে টিকিট বিক্রির কাউন্টার খুলেছে।
কাউন্টারে ভ্যাঁপসা গরম থাকায় নারীদের দুর্ভোগ বেড়েছে। ভোর রাত থেকেই মানুষ টিকিট নিতে কমলাপুর স্টেশনে লাইনে অবস্থান নেন। রাত শেষ হয়ে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আরো দীর্ঘ হয়েছে টিকিট প্রত্যাশীদের লাইন। মোট ২৬টি টিকিট কাউন্টারের প্রতিটির সামনেই টিকিট প্রত্যাশীদের রয়েছে দীর্ঘ সারি। যা কাউন্টারের সামনে থেকে একদম পেছনের দিক হয়ে এঁকেবেঁকে মানুষের লাইন চলে গেছে বাইরে। এই সারিতে যোগ দিতে অনেকেই এসেছেন মধ্য রাতে, আবার অনেকে সেহরির পরে এসে নিজেকে যুক্ত করেছেন এই সারিতে। অনেকে বক্সে খাবার এনে এখানেই সেরে নিয়েছেন সেহরি। আবার অনেকে দীর্ঘ সময় পাশের মানুষগুলোর সঙ্গে গল্প করে, পত্রিকা বিছিয়ে অথবা তাস খেলে সময় কাটিয়েছেন। সময় কাটানোর সেই ক্ষণগুলোতেও প্রতিনিয়ত লাইনে যুক্ত হয়েছেন নতুন করে আসা টিকিট প্রত্যাশীরা। সবার অপেক্ষা কখন বাজবে সকাল ৮টা। কারণ ওই সময় থেকে স্টেশনের ২৬টি কাউন্টারে প্রতিদিন ২৩ হাজার ৫১৪টি টিকিট বিক্রি করা হবে। গতকাল দুপুর ১২টা। দীর্ঘ লাইনের পেছনে এমদাদ হোসেনের অবস্থান। যাবেন নীল সাগর ট্রেনে নীলফামারী। বলেন, এতো বড় লাইন টিকিট পাবো কিনা জানি না। রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা জানান, শুক্রবারের তুলনায় শনিবার টিকিট প্রত্যাশীদের সংখ্যা অনেক বেশি ছিল। যত মানুষ আছে অতো টিকিট নেই, হয়তোবা কিছু ট্রেনের টিকিট না পেয়ে ফিরে যেতে হবে অনেককেই। কিছু অভিযোগ সম্পর্কে স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী বলেন, আসলে ঈদের সময় সবাই এসি টিকিট চায়, কিন্তু সেগুলোর তো লিমিটেশন আছে। তিনি যে স্টেশনের জন্য চেয়েছেন সেখানের বরাদ্দকৃত এসি টিকিট হয়তো শেষ হয়ে গেছে যে কারণে তিনি পাননি। তিনি বলেন, সকাল ৮টা থেকে বিরতিহীনভাবে টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। সবাই সুশৃঙ্খলভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট সংগ্রহ করেছেন, বরাদ্দকৃত টিকিট শেষ না হওয়া পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে টিকিট বিক্রি চলবে। এবার টিকিট কাউন্টারের সংখ্যা বাড়িয়ে ২৬টি করা হয়েছে। শৃঙ্খলা ঠিক রাখতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ছাড়াও রেলওয়ের নিজস্ব বাহিনী তৎপর রয়েছেন। উল্লেখ্য, ঈদের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হয় ১লা জুন। যা চলবে আগামী ৬ই জুন পর্যন্ত। আজ ৩রা জুন দেয়া হবে ১২ই জুনের টিকিট, ৪ঠা জুন ১৩ই জুনের টিকিট, ৫ই জুন ১৪ই জুনের টিকিট এবং ৬ই জুন ১৫ই জুনের অগ্রিম টিকিট দেয়া হবে। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে টিকিট বিক্রি হচ্ছে। একজন একসঙ্গে সর্বোচ্চ চারটি টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন।