ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনে তোড়জোড়, কারা আসছেন দায়িত্বে?

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

অতীতে বিএনপির সব গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামে মূল ভূমিকা পালন করেছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় সেই সংগঠনের অবস্থা আজ বেহাল। ছাত্রদল কি তার সোনালি অতীত হারিয়ে যেতে চলেছে? এমন বহু প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে খোদ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে। কিন্তু এর কোনো উত্তর তাদের জানা নেই। তবে ছাত্রদলের কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের দাবি যত দ্রুত সম্ভব নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করে সংগঠনকে বাঁচানো হোক। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আজ থেকে চার বছর আগে যখন ছাত্রদলের কমিটি গঠন করা হয়, তখন দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা এক ধরনের অঙ্গীকার করেছিলেন যেকোনো পরিস্থিতিতে তারা নিয়মিত শিক্ষাঙ্গনে যাবেন। শিক্ষার্থীদের মৌলিক অধিকারসহ তাদের সব দাবির পক্ষে থাকবেন এবং সাংগঠনিক সব জেলা, মহানগর, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেবেন। কিন্তু গত চার বছরে এসব প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন হয়নি বললেই চলে। দেশের সব আন্দোলন-সংগ্রামের সূতিকাগার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেও ছাত্রদল নেই বলা যায়। শুধু কি তাই? রাজপথের আন্দোলন-সংগ্রামে অংশগ্রহণের চেয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচারণা বেশি পছন্দ ছাত্রদলের শীর্ষ নেতাদের। কোনো বিক্ষোভ-সমাবেশ কর্মসূচি দুই চার মিনিট স্থায়ী না হলেও ফেসবুকে ছবিসহ কর্মসূচির জানান দিতে কসুর করেন না তারা। এ নিয়ে বিএনপি এবং ছাত্রদলে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

জানা গেছে, দুই বছর ধরে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি দিয়েই চলছে ছাত্রদল। রাজীব আহসানকে সভাপতি ও আকরামুল হাসানকে সাধারণ সম্পাদক করে ২০১৪ সালের ১৪ অক্টোবর ছাত্রদলের ১৫৩ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। এরপর ২০১৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি ৭৪৩ সদস্যের বিশাল আকৃতির পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। সেই থেকে একাধিকবার ছাত্রদলের সিনিয়র নেতাকর্মীরা বর্তমান সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের প্রতি অনাস্থা জানিয়েছেন। তারা বৈঠক করে দ্রুত নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনের দাবিতে বিএনপি মহাসচিবসহ সংশ্লিষ্ট নেতাদের কাছে দাবি জানিয়েছেন।