কমলনগরে খাল দখল করে ভবন নির্মাণ, জলাবদ্ধতা

July 29, 2018, 10:33 am নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের জারিরদোনা খালে ময়লা-আবর্জনা ফেলে অবৈধ দোকানঘর ও ভবন উত্তোলন করে দখল করে ফেলেছে প্রভাবশালীরা। এতে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতায় কৃষকের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। উপজেলা সদর হাজিরহাট বাজারের মাঝখান দিয়ে বয়ে যাওয়া খালটি হাজিরহাট ও চরফলকন ইউনিনের সীমানা নির্ধারণকারী খাল হিসেবে পরিচিত। মেঘনা নদীর সঙ্গে সরাসরি সংযোগ থাকায় বর্ষা মৌসুমে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের পানি আসা-নামা করতো এ খাল দিয়ে। দীর্ঘদিন থেকে হাজিরহাট বাজারের কিছু অসাধু ব্যবসায়ী ও দোকান মালিকরা পরিকল্পিতভাবে ময়লা আবর্জনা ফেলে খালের দুই পাড় দখল করে দোকানঘর ও ভবন নির্মাণ করে। ফলে পানির প্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়।
পানির প্রবাহ বন্ধ হওয়ার কারণে প্রতিবছর দুই ইউনিয়নের সাধারণ কৃষকদের সয়াবিন, আউশ ধান, আমনের বীজতলাসহ সকল ধরনের ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে এলাকাবাসী উপজেলা প্রশাসনকে এ জারিরদোনা খাল দখলমুক্ত করার জন্য অভিযোগ করেও কোনো কাজ হয়নি। উপজেলা প্রশাসনের সার্বিক কোনো সহযোগিতা না পাওয়ায় এতে স্থানীয় কৃষকের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. খোরশেদ আলম জানান, এ জারিরদোনা খাল দখল উচ্ছেদের জন্য এলাকাবাসীর পক্ষে জেলা প্রশাসক, উপজেলা চেয়ারম্যান বরাবর বহুবার আবেদন করেও কোনো কাজ হয়নি। সর্বশেষ ২০১৬ সালে অতিবৃষ্টির কারণে জলাবদ্ধতায় এ এলাকার প্রায় এক কোটি টাকার সয়াবিন নষ্ট হয়। তখন আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক এ আসনের সংরক্ষিত নারী সদস্য ফরিদুন নাহার লাইলী তিনি কৃষি মন্ত্রণালয়ের একজন যুগ্ম সচিবকে নিয়ে এলাকা পরিদর্শনে আসেন। ওই দিন তিনি উপজেলা পরিষদ স্পন্দন কক্ষে এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। ওই সময় এ খাল পুনরুদ্ধারের কথা আসলে সচিব বরাবর আবেদন দিতে বলেন তিনি। তাৎক্ষণিক আবেদন দেয়া হলে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব দ্রুত ব্যবস্থা নিবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হয়নি। কমলনগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. রকিবুল ইসলাম বলেন, এ উপজেলা আমি নতুন যোগদান করেছি। যার কারণে বিষয়টি আমি অবগত নয়। আমি খোঁজখবর নিয়ে এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন মহলে অবগত করবো। জানতে চাইলে সহকারী  কমিশনার (ভূমি) মো. ইয়াছিন জানান, বিষয়টি আমি অবগত আছি। খুব শিগগিরই পরিদর্শনে গিয়ে খালটি উদ্ধারের ব্যবস্থা নেবো।