রাশেদের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন ১১ সেপ্টেম্বর

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক লাইভে প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি করার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় সরকারি চাকুরিতে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা মো. রাশেদ খানের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ আগামী ১১ সেপ্টেম্বর ধার্য করা হয়েছে।

আজ রবিবার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত এই তারিখ ধার্য করেন। আজ এই মামলার প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। কিন্তু মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের উপ-পুলিশ পরিদর্শক সজীব উজ জামান প্রতিবেদন দাখিল না করায় মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. গোলাম নবী নতুন তারিখ ধার্য করেন।  

সরকারি চাকুরিতে কোটা সংস্কার নিয়ে বেশ কিছু দিন আন্দোলন চলমান রয়েছে। রাশেদ কোটা সংস্কার সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের সমন্বয়কারী। শাহবাগ তথা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় আন্দোলন করতে গিয়ে মারামারি, ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়া, ভাংচুরের ঘটনাও ঘটে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আন্দোলনকারীদের প্রতি দিক নির্দেশনা আসে।

এরই মধ্যে ফেসবুক লাইভে প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি করার অভিযোগে গত ১ জুলাই শাহবাগ থানায় তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলাটি দায়ের করেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক আল নাহিয়ান খান জয়। ওইদিনই রাজধানীর মিরপুর এলাকার একটি বাসা থেকে থেকে রাশেদকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, শিক্ষার্থীদের কোটা আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদে কোটা বাতিলের ঘোষণা দেন যা প্রজ্ঞাপন প্রকাশের প্রক্রিয়াধীন। এরপরও গত ২৭ জুন রাশেদ খান ‘কোটা সংস্কার চাই’ নামের একটি ফেসবুক গ্রুপ থেকে ভিডিও লাইভে এসে বক্তব্য দেন। সেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে মানহানিকর বক্তব্য ও মিথ্যা তথ্য দেন।

এ মামলায় গ্রেপ্তারের পর রাশেদকে দুই দফায় রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। বর্তমানে তিনি কারাগারে আছেন।