শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে অচল বিভিন্ন জেলা শহর

August 5, 2018, 3:43 pm নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

 

   নিরাপদ সড়কের দাবিতে গতকাল বরিশালে মহাসড়ক অবরোধ করে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। অপরদিকে সারা দেশের সঙ্গে বাস ও পণ্যবাহী সব যান চলাচল নিরাপত্তার অজুহাতে বন্ধ করে দিয়েছে মালিকপক্ষ। গতকাল  বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা একটি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ভাঙচুর করে। প্রায় দেড় ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন ও বিক্ষোভ চলাকালে মহাসড়কে যানবাহনের দীর্ঘ লাইন পড়ে গেলে পুলিশের অনুরোধে শেষ পর্যন্ত অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয় শিক্ষার্থীরা। নগরীর চৌমাথা এলাকায় ঢাকা-কুয়াকাটা মহাসড়কে এই কর্মসূচি পালন করে তারা। এতে অংশ নেয় সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজ, অমৃত লাল দে কলেজ, সরকারি মহিলা কলেজ, বরিশাল মডেল স্কুল এন্ড কলেজ, ইনফ্রা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট, সরকারি মহিলা কলেজ, বরিশাল সরকারি জিলা স্কুল, উদয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ বেশ কিছু স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা।


বেলা ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ এবং মানববন্ধন চলাকালীন সময় ন্যায়বিচার চেয়ে স্লোগান দেয় শিক্ষার্থীরা। তারা বরিশাল সড়কে চলাচলরত যানবাহনের চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স, নগরীর বিভিন্ন স্থানে যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং করা, অটোরিকশা ও মাহিন্দ্রা (থ্রি-হুইলার) স্ট্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দাবি তোলেন। এ সময় বেশ কয়েকটি গাড়ির লাইসেন্স দেখতে চায় তারা। এতে রুপাতলী ও নথুল্লাবাদ থেকে আসা শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে অটো ও মাহিন্দ্রা যোগে যাতায়াত করা যাত্রীদের। বিক্ষোভ চলাকালে বেশ কিছু যানবাহন বিক্ষোভস্থল থেকে অতিক্রম করার চেষ্টা করলে তাতে বাধা দেয় শিক্ষার্থীরা, তবে অ্যাম্বুলেন্সসহ গুরুত্বপূর্ণ যানবাহন শিক্ষার্থীরাই পার করে দেয়।

কক্সবাজার

রাজধানীসহ সারা দেশে চলমান ছাত্র আন্দোলনের ঢেউ এসে লেগেছে পর্যটন শহর কক্সবাজারেও। সকাল ১০টা থেকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা কক্সবাজার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এসে অবস্থান নেয়। তারা নানা স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত করে তোলে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ। এসময় পথচারী লোকজন ও উৎসুক জনতার ভিড় জমে যায়। বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এসে ঘটনাস্থলে অবস্থান নেন। সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ছাত্রছাত্রীদের সংখ্যাও বাড়তে থাকে। বাড়তে থাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য সংখ্যাও। তবে তাদের বেশ কৌশলী ভূমিকায় দেখা যায়। অনেকটা প্রত্যক্ষদর্শীর ভূমিকা পালন করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ ফজলুল করিম চৌধুরী, কক্সবাজার সিটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ ক্যাথিং অং, কক্সবাজারের সাবেক পৌর চেয়ারম্যান নুরুল আবচার সহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসে আন্দোলনরত ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে তাদের ফিরে যেতে অনুরোধ করেন। কিন্তু শিক্ষার্থীরা মুহর্মুহ করতালি ও স্লোগানে স্লোগানে তাদের অবস্থান দৃঢ় করে রাস্তায় বসে পড়েন। এক পর্যায়ে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায়  ১১টার দিকে শিক্ষার্থীরা শহীদ মিনার ত্যাগ করে।

চাঁপাই নবাবগঞ্জ
   চাঁপাই নবাবগঞ্জ শহরের বিশ্বরোড মোড়ে নিরাপদ সড়কের দাবিতে অবস্থান নিয়েছে শিক্ষার্থীরা। সকাল ১০টার পর থেকেই শহরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অবস্থান নেয় সেখানে। তারা নিরাপদ সড়কের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেয়। পাশাপাশি সড়কে চলাচল করা যানবাহনের কাগজপত্র যাচাই করছে। শিক্ষার্থীদের অবস্থানের খবর পেয়ে সেখানে আসে পুলিশের একটি দল। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান শিক্ষার্থীদের সড়ক থেকে সড়ে যাওয়ার আহ্বান করলেও শিক্ষার্থীরা প্রত্যাখ্যান করে সড়কে অবস্থান করে।

সাভার

   রাজধানীতে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনা ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে গতকালও সাভার-আশুলিয়ার বিভিন্ন স্থানে মহাসড়ক অবরোধসহ বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষার্থীরা। এসময় শিক্ষার্থীরা মহাসড়কের বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান নিয়ে নিরাপদ সড়কের দাবিতে স্লোগান দেয়। বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের সরকার ও পুলিশকে উদ্দেশ্য করে আপত্তিকর শব্দ সংবলিত ব্যানার-ফেস্টুন হাতে নিয়ে মহাসড়কে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। এ ঘটনায় সাধারণ মানুষসহ রোগীদেরকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। শনিবার সকাল থেকেই ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের উলাইল, গেন্ডা, সাভার বাসস্ট্যান্ড, রেডিও কলোনি, বিশমাইলসহ বিভিন্ন স্থানে জড়ো হতে থাকে শিক্ষার্থীরা। এসময় বিক্ষিপ্তভাবে শিক্ষার্থীদেরকে সড়ক অবরোধ করে মহাসড়কে চলাচলকারী বিভিন্ন যানবাহনের ফিটনেস ও ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করতে দেখা যায়। পরে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও স্কুল-কলেজের শিক্ষকদের সহায়তায় শিক্ষার্থীদেরকে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেয়া হয়।

বোদা

   নিরাপদ সড়কের দাবিতে পঞ্চগড়ের বোদার সাকোয়ায় মানববন্ধন করেছে শিক্ষার্থীরা। গতকাল দুপুরে পঞ্চগড়ের সাকোয়া ডিগ্রি কলেজের সামনে দেবীগঞ্জ-পঞ্চগড় এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের দু’পাশে দাঁড়িয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। এ সময় বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড নিয়ে শিক্ষার্থীরা মানববন্ধনে অংশ নেয়। মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা নিরাপদ সড়ক ও বেপরোয়া চালকদের বিচার দাবি করেন।

দিনাজপুর
নিরাপদ সড়কসহ বিভিন্ন দাবি দ্রুত বাস্তবায়ন চেয়ে সারা দেশের সঙ্গে দিনাজপুরেও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন শেষে পুলিশকে ফুল দিয়ে ঘরে ফিরেছে শিক্ষার্থীরা। গতকাল বেলা সাড়ে ১১টায় দিনাজপুর শহরের সদর হাসপাতাল মোড়ে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা নিরাপদ সড়কের দাবিতে নানা রকমের ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে বিক্ষোভসহ বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে। পরে একটি বিক্ষোভ মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলার বিভিন্ন স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীরা। বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন শেষে পুলিশকে ফুল দিয়ে ঘরে ফিরেছে শিক্ষার্থীরা।

রংপুর

   নিরাপদ সড়কের দাবিতে রংপুরে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল-মানববন্ধন, সড়ক অবরোধ করেছে। শিক্ষার্থীদের ক্লাসমুখী করতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের সঙ্গে বৈঠক করেছে জেলা প্রশাসন। এদিকে, সড়কে নিরাপত্তার অভাবের অজুহাতে দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ রেখেছে পরিবহন শ্রমিকরা।
গতকাল সকাল ১০টায় নগরীর সড়ক ভবনের সামনে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা জড়ো হয়ে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করে। তারা যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রেখে মানববন্ধন করে নিরাপদ সড়কের দাবিতে স্লোগান দিতে থাকে। বেলা ১২টায় নতুন করে অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে যোগ দিলে তারা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করলে পুলিশের হস্তক্ষেপে শিক্ষার্থীরা ২০ মিনিট থেকে অবরোধ তুলে নেয়।

লালমনিরহাট
   সড়ক দুর্ঘটনায় শিক্ষার্থী হত্যার প্রতিবাদ ও নিরাপদ সড়ক চাই এর দাবিতে গতকাল সকালে লালমনিরহাট জেলার মিশন মোড়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।
দুই ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন শিক্ষার্থী তাহহিয়াতুল হাবীব মৃদুল, জ্যাকলিন সাম্‌স কাব্য ও ইশরাত জাহান হাসি।
মানববন্ধনে জেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। এ সময় তারা অবিলম্বে দায়ী ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার ও ফাঁসির দাবি জানান। এদিকে, একই দাবিতে জেলার হাতীবান্ধা উপজেলায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা। দুই ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল।

নাটোর
   নিরাপদ সড়কের দাবিতে নাটোরেও রাস্তায় নেমে আসে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা বিক্ষোভ মিছিল ও শহরের মাদরাসা মোড়ে অবস্থান নিয়ে গাড়ির লাইসেন্স ও কাগজপত্র পর্যবেক্ষণ করে। এ ছাড়া জেলার বড়াইগ্রামের রাজাপুর বাজার এলাকায় নিরাপদ সড়কের দাবিতে দুই ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে শিক্ষার্থীরা। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে যান চলাচল শুরু হয়।