অধিকাংশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ

August 8, 2018, 8:57 am নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

 

   স্কুল-কলেজের পর এবার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিদের ডেকেছে সরকার। নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনের মধ্যে পুলিশের সঙ্গে কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষের প্রেক্ষাপটে দেশের সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিদের ‘মতবিনিময়ে’ ডেকেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আজ রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে বিকাল ৩টায় এই মতবিনিময় সভা হওয়ার কথা রয়েছে। সভায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, ইউজিসির চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত থাকবেন।
এদিকে নিরাপদ সড়কের দাবিতে স্কুল-কলেজের পর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মাঠে নামার পর গত সোমবার ইস্টওয়েস্ট ও ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়ায় নর্থসাউথসহ অধিকাংশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অঘোষিতভাবে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রেখেছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়ায় পর্যন্ত পরীক্ষা বন্ধ রাখলেও ক্লাস নিয়েছে।


তবে উপস্থিতি ছিল খুবই কম। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির (ডিআইইউ) সিনিয়র সহকারী পরিচালক (গণসংযোগ) আনোয়ার হাবিব কাজল বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গত শনিবার থেকে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পরিস্থিতি শান্ত না হওয়া পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকবে। সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটির গণসংযোগ কর্মকর্তা ইমতিয়াজ আহমেদ জানান, মঙ্গলবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তাদের বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। রাজধানীর আব্দুল্লাপুর এলাকায় অবস্থিত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেজ এগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজির (আইইউবিএটি) গণসংযোগ কর্মকর্তা মো. আল-আমিন শিকদার সিহাব বলেন, সব ধরনের ক্লাস বন্ধ থাকলেও প্রশাসনিক কাজে বিশ্ববিদ্যালয় খোলা থাকবে।

স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির আজ বুধবার ও আগামীকালের সামার সেমিস্টারের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। তবে ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়ায় গতকাল নিয়মিত ক্লাস হয়েছে। এর আগে গত ৫ই আগস্ট ঢাকা মহানগরীর সরকারি-বেসরকারি স্কুল-কলেজের প্রধানদের নিয়ে সভা করে বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছিলেন মন্ত্রী। গত ২৯শে জুলাই ঢাকার বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর রাজধানী অচল করে টানা বিক্ষোভ দেখায় শিক্ষার্থীরা। এই আন্দোলনের নবম দিন গত সোমবার রাজধানীতে কয়েকটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে পুলিশের কঠোর অবস্থানের মধ্যে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এই পরিস্থিতিতে ঢাকার ইস্টওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয় দুই দিন এবং ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় একদিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।