দারুল ইহসানের সনদের বৈধতা স্থগিত

August 30, 2018, 4:15 pm নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

 

   দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদের বৈধতা দেয়ার একদিনের মাথায় তা আবার স্থগিত করা হয়েছে। গতকাল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের এক আদেশ গত মঙ্গলবারের আদেশটি স্থগিত করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করে মাধ্যমিক ও উচ্চ বিভাগের সচিব সোহরাব হোসাইন মানবজমিনকে বলেন, এ বিশ্ববিদ্যালয়টি কোর্টে আদেশে বন্ধ হয়েছে। সেখানে কিছু পর্যবেক্ষণ দেয়া হয়েছিল।

 

সনদের বৈধতা পর্যবেক্ষণের আলোকে হয়েছে কি না সেটি আরও যাচাই-বাছাই করার প্রয়োজন। প্রয়োজনে আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত নেয়া হবে। সেজন্য আদেশটি বাতিল না করে আপাতত স্থগিত করা হয়েছে।
গত মঙ্গলবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে বলা হয়, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা মোতাবেক দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করা সনদের গ্রহণযোগ্যতার বিষয়ে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডি/ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে এবং ওই সনদের ভিত্তিতে ইতোমধ্যে বিধিমোতাবেক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিওভুক্ত সংক্রান্ত সব কার্যক্রম মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর গ্রহণ করবে। ২০০৬ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ১৩টি রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৬ সালের ১৩ই এপ্রিল হাইকোর্ট এ বিশ্ববিদ্যালয়কে বন্ধ ঘোষণা করে রায় দেন। রায়ে দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

 

এই নামে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের অনুমতি না দেয়ার জন্য সরকারকে নির্দেশ দেয়া হয়। রায়ে আরও বলা হয়, দারুল ইহসান কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নয় বলেও পর্যবেক্ষণ দেন। রায় প্রকাশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক ও কর্মচারীদের এমপিওভুক্তিতে জটিলতা তৈরি হয়। নতুন এমপিওভুক্তির জন্য আবেদনকারীদের এমপিওভুক্তি বন্ধ হয়ে যায়। ইনডেক্সধারী শিক্ষক-কর্মচারীরা নতুন প্রতিষ্ঠানে উচ্চতর পদে এমপিওভুক্ত হতে পারছেন না। ফলে দেশব্যাপী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিষয়টি নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়। জটিলতা নিরসনে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর গত বছর ১২ই অক্টোবর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কমর্রত শিক্ষক-কর্মচারীদের ক্ষেত্রে রায়ের আগে অর্জিত সনদধারীদের গ্রহণযোগ্যতা দিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগকে চিঠি দেয়। সম্প্রতি বদলি হওয়ার মাউশির উপ-পরিচালক (মাধ্যমিক) নিজ উদ্যোগে এ চিঠি দেন।

চিঠি আমলে নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দারুল ইহসানের সনদের বৈধতার ব্যাপারে মতামত চায় বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের কাছে। কমিশন আদালতের রায় এবং সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে মন্ত্রণালয়কে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য মতামত দেয়। এরপর গত মঙ্গলবার বিতর্কিত এ আদেশ দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ।