তরুণদের সচেতনভাবে জীবনযাপন করার আহ্বান জানালেন ওমরসানী

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

সাম্প্রতিক দুটি মৃত্যু চিত্রনায়ক ওমরসানীকে ভীষণ কষ্ট দিয়েছে। একটি পুলিশ কর্মকর্তা উত্তম এবং অন্যটি একুশে টিভির সিনিয়র রিপোর্টার মামুনের মৃত্যু। দু’জনই বয়সে ছিলেন তরুণ। আর তাই তাদের এই অকালে চলে যাবার বিষয়টি কোনভাবেই মানতে পারছেন না ওমরসানী। পুলিশ কর্মকর্তা উত্তমকে একটি বাস চাপা দিয়ে মেরে ফেলে। অন্যদিকে রিপোর্টার মামুন হার্ট অ্যাটাক করে মারা যায়। ওমরসানী বলেন,‘ উত্তম এবং মামুনের মৃত্যু এই মুহুর্তে আমাকে ভীষণ কষ্ট দিচ্ছে। খুব খারাপ লাগছে উত্তমের তিন মাস বয়সের সন্তানের জন্য। এই বয়সে ছোট্ট একটি শিশু তার বাবাকে হারালো। স্ত্রী হারালো তার স্বামীকে। এটা যে কতো কষ্টের তা যার হারিয়েছে তিনিই বুঝতে পারছেন এই হারানোর বাস্তবতা। তাই আমি চাই উত্তমের মৃত্যুর বিচার হোক। আবার মাত্র ৩২ বছর বয়সে হার্ট অ্যাটাকে মারা গেলেন মামুন। এই বিষয়টিও মেনে নেবার মতো নয়। দুটি মুত্যুই আমাদের ভীষণভাবে নাড়া দিয়ে গেছে। তাদের অকালে চলে যাওয়া আমাদের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেলো। এই ক্ষতি সত্যিই পূরণ হবার নয়। দেশ এবং দেশের মানুষ তাদের অবদান নিশ্চয়ই মনে রাখবে। তাদের আত্মার শান্তি কামনা করছি।’ এদিকে ওমরসানী দেশের তরুণ প্রজন্মের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন,‘ তরুণদের বলবো সচেতনতার সাথে জীবনযাপন করতে। বয়স কম বলেই যে জীবনের ঝুকি নেই , তা কিন্তু নয়। এটা সত্য যে জন্ম মৃত্যু আল্লাহর হাতে। কিন্তু তারপরও আমাদেরকে সচেতন হয়ে চলতে হবে। নিজেদের স্বাস্থ্যের প্রতি নিজেদেরকেই সচেতন হতে হবে। যদি আগে থেকেই সচেতন থাকি তাহলে সুন্দর স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারবো আমরা।’ এদিকে ঈদের আগে ওমরসানী মৌসুমীর রানী গুড়া মসলা’র বিজ্ঞাপনটির প্রচার শুরু হয়েছে। বিজ্ঞাপনটির ‘সানী ভাই খাবেন না’ সংলাপটি দারুণ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। ওমরসানী অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র উত্তম আকাশের ‘চিটাগাংইয়া পোয়া নোয়াখাইল্যা মাইয়া’। এরইমধ্যে তিনি শেষ করেছেন রাশেদ রাহা পরিচালিত ‘নোলক’ চলচ্চিত্রের কাজ।