ভবিষ্যতে গুঁইসাপ হবে বিলুপ্ত প্রাণী

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

মাদারীপুরে আগেরমতো গুঁইসাপ দেখতে পাওয়া যায় না। যা মাদারীপুরের পুকুরগুলিতে গুঁইসাপের সংখ্যা ছিল অনেক। সহজেই দেখা মেলত এদের। এটা শুধু মাদারীপুরে গুঁইসাপের সংখ্যা কমে গেছে তানা। এখন এটি আমাদের দেশের সবস্থানেই এদের অনেক কম দেখাতে পাওয়া যাচ্ছে। কারন তাদের এখন প্রধান বাসস্থান পুকুরের অভাবে এবং এদেরকে মেরে ফেলা হচ্ছে।
গুঁইসাপ সাধারনত পুকুরে থাকে এদের পুকুরে দেখতে পাওয়া যায়। আগে এদের অবাধ বিচরণ ছিল। যে কোন পুকুরে দেখা যেত কিন্তু এখন আর সহজেই দেখা যায় না। এরা এখন বিলুপ্তের পথে। দেশে পুকুরে সংখ্যা কমে যাওয়ার কারন হিসেবে হলেও কিন্তু এদের এখন মেরে ফেলা হচ্ছে। তবে এরা কোন ওতটা ক্ষতিকর প্রাণী নয়। যে এদেরকে মেরে ফেলতে হবে। দেশে প্রয়োজনের কারনে পুকুর ভরাট করে মানুষের আবাসস্থল, কল-কারখানা তৈরী করছে। সেই সাথে দেশের জনসংখ্যা বেড়ে গেছে। চাহিদার কারনে দেশের পুকুরগুলি ভরাট করা হচ্ছে। দেশে কিন্তু পুকুরে সংখ্যা বাড়ার কোন লখন নেই। যে কয়টি পুকুর আছে তা এখন হাতে গোনার মতো। তাই দিনদিন কমে যাচ্ছে এই গুইলসাপের সংখ্যা।
আগে পুকুরে মাছ চাষ করলেও এদেরকে মেরে ফেলা হতনা। তবে যারা বর্তমানে পুকুরে মাছ চাষ করছেন তাদের একটাই ধারনা পোনা মাছ পুকুরে ছারলেই গুইলসাপ খেয়ে ফেলছে এ কারনেই এদের ধরেধরে মেরে ফেলা হচ্ছে। আগে পুকুরে দেখা যেত সচরাচর কিন্তু দেশে যে হারে পুকুরের সংখ্যা কমছে এবং তাদেরকে মেরে ফেলা হচ্ছে এতে ভবিষ্যতে গুঁইসাপ আর দেখা নাও যাতে পারে।
দেশে এখনোও কিছু পুকুরে দেখা মেলেও তাবে তা নেহাত হাতে গোনা। গুঁইসাপের প্রধান বাসস্থান হল পুকুর। যেহেতু পুকুরে কমে যাচ্ছে তাই সেই সাথে মেরে ফেলা হচ্ছে এতে তাদের দেখা যাবে না আর তাই এরা হবে এখন বিলুপ্ত প্রাণী। আগে দেশের অনেক পুকুরে গুঁইসাপের  সহজেই দেখা মেলত। এখন পুকুরে দেখা গেলেই এদের ধরেধরে মেরে ফেলা হচ্ছে তাও আবার নির্বিচারে। অনেক আগে পুকুরে মাছ চাষের সাথে সাথে এদের বসবাস ছিল অবাধ। কিন্তু এখন যে হারে এদেরকে মেরে ফেলা হচ্ছে। ভবিষ্যতে এরা হবে বিলুপ্ত প্রাণী। এখনেও সময়ে আছে নতুন প্রজন্মের জন্য এদের সংরক্ষণ করা উচিত হবে।