অবৈধ ভিওআইপি ধরতে বিটিআরসির নতুন কৌশল

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

দেশে অবৈধ ভিওআইপি প্রযুক্তির মাধ্যমে প্রতিদিন আড়াই কোটি মিনিট কল আদান-প্রদান হয়। ফলে সরকারের বছরে ৫০ কোটি টাকা  বেহাত হচ্ছে। এই বিপুল পরিমান অর্থ সাশ্রয়ের জন্য টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি নতুন প্রযুক্তির আশ্রয় নিয়েছে। এই প্রযুক্তির সহায়তায় অবৈধ ভিওআইপি কাজে জড়িত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ব্যবহৃত সিমবক্সের সুর্নিদিষ্ট স্থান (পিন পয়েন্ট) শনাক্ত করা সম্ভব।

 

এই প্রযুক্তির মাধ্যমে বিটিআরসি ৯ থেকে ২০ আগস্ট রাজধানীর ছয়টি এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ১০ হাজার ৯৪৭ টি সিম এবং অবৈধ ভিওআইপি কাজে ব্যবহৃত ৩৭ লাখ টাকার সরঞ্জামাদি উদ্ধার করেছে। একাজে জড়িত থাকার অপরাধে ৮ জনকে আটক করা হয়েছে। মামলা হয়েছে ছয়টি।

সোমবার সকালে বিটিআরসি কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক বলেন, ‘অবৈধ ভিওআইপি (ভয়েস ওভার ইন্টারনেট প্রটোকল)-এর মাধ্যমে প্রতিদিন আড়াই কোটি মিনিট আদান-প্রদান হয়। ফলে সরকার বিপুল পরিমান সরকারি অর্থ বেহাত হচ্ছে। এটি প্রতিরোধ করতে আমরা অবৈধ ভিওআইপি স্থাপনার পিন পয়েন্ট তথ্য পাবার জন্য অত্যাধুনিক ডিভাইস ব্যবহার করছি।’
 
তিনি বলেন, ‘অবৈধ ভিওআইপি কল আদান-প্রদান সংশ্লিষ্ট খাত থেকে সরকারের ৫০ কোটিরও বেশি টাকা সাশ্রয় হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, অবৈধ ভিওআইপি সরঞ্জামাদি উদ্ধারের জন্য ঢাকার মোহাম্মদ পুর, আদাবর, বাড্ডা এবং উত্তরা পশ্চিম থানার আবাসিক এলাকায় যৌথ অভিযান চালানো হয়। অভিযানকালে মোবাইল অপারেট টেলিটকের ৫ হাজার ৭৫টি, এয়ারটেল ও রবির ৩ হাজার ৮৯৭ টি, গ্রামীণফোনের ১ হাজার ৪১৪টি, বাংলালিংকের ৪২৬টি, পিএসটিএন অপারেটর র্যাং কসটেলে ১২০টি এবং ওয়াইম্যাক্সের অপারেটর বাংলালায়নের ১৫টি সিম জব্দ করা হয়। এছাড়াও অভিযানে ৭২টি জিএসএম গেটওয়ে ও অন্যান্য আনুসঙ্গিক মালামাল জব্দ করা হয়েছে। যার বাজারমূল্য ৩৬ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

বিটিআরসির নিয়ম অনুযায়ী অবৈধ ভিওআইপি কাজে ব্যবহারের জন্য মোবাইল অপারেটরের সিম পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্ট অপারেটরকে জরিমানা করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে, বিটিআরসির ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড অপারেশন্স বিভাগের ডিরেক্টর জেনারেল ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মুস্তাফা কামাল বলেন, বিটিআরসির চলমান কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আধুনিক ও আন্তর্জাতিক মানের প্রযুক্তি ব্যবহার করে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সহায়তায় অবৈধ ভিওআইপি কার্যক্রমে জড়িত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ব্যবহৃত সিমবক্স এর সুর্নিদিষ্ট স্থান শনাক্তকরণে সক্ষমতা অর্জন করেছে।

বিটিআরসি এই ধরনের অভিযান নিয়মিত পরিচালনা করবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বিটিআরসির উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ছাড়াও, আইজিডব্লিউ অপারেটরস ফোরাম(আইওএফ) এবং মোবাইল ফোন কোম্পানির প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।