আজ বনানীর নরডিক হোটেলে ‘ট্রেইন দ্য ব্রেইন’ কর্মশালা

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

হেমি হোসেন একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন লাইফ কোচ। তিনি একাধারে একজন আইসিটি লিডার, ক্যারিয়ার পরামর্শক, মোটিভেশনাল স্পিকার।


২০০৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার ইন্টারন্যাশনাল কোচিং ফেডারেশন থেকে লাইফ কোচিং-এর ওপর ডিপ্লোমা করেন।

২০১০ সালে অস্ট্রেলিয়াতে ক্যারিয়ার্স ক্লাব নামে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। ২০১৬ সালে ক্যারিয়ার্স বিষয়ক পরামর্শদাতা প্রতিষ্ঠান ক্যারিয়ারস হাব বাংলাদেশ নামে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন।

শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে চাকরিজীবি এবং সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রের মানুষকে ক্যারিয়ার এবং বিভিন্ন বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করে প্রতিষ্ঠানটি।

হেমি হোসেন মূলত মানুষের মনস্তাত্বিক দিক নিয়ে বেশি কাজ করেন। ইতিমধ্যে তার প্রতিষ্ঠান ক্যারিয়ার্স হাবের জন্য অর্থকন্ঠ বিজনেস ম্যাগাজিন থেকে বর্ষসেরা উদ্যোক্তা পুরস্কারে ভূষিত হয়েছে।

২০১৮ সালে তিনি মেলবোর্নে বেস্ট বিজনেস অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত হয়েছেন। হেমি হোসেন সম্প্রতি তার কাজ নিয়ে মতবিনিময় করেন।

তিনি বলেন, ট্রেইন দ্য ব্রেইন শিরোনামে ৩ নভেম্বর বনানীর নরডিক হোটেল কনফারেন্স হলে একটি প্রোগ্রাম করতে যাচ্ছি।

সেখানে যে বিষয়গুলো থাকবে তার মধ্যে রয়েছে কর্পোরেট বিহেইভিয়ার, বিশ্লেষণ, ইনফরমেশন কি ভাবে সংগ্রহ করতে হয়।

এবং এই ইনফরমেশন গুলো মানুষের সামনে কি ভাবে তুলে ধরবে। প্রোগ্রাম ল্যাঙ্গুয়েজ নিয়েও কথা বলবো। আমি বিশ্বাস করি সফল হওয়ার জন্য প্রথমেই মাইন্ডসেট দরকার।

অর্থ কিভাবে উপার্জন করে সেভিং করতে হয় ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হবে।

অবসরে একাকীত্ব কি ভাবে কাটাবে? মার্কেটে কি ভাবে ব্রান্ডিং করবে? কিভাবে নিজেকে মার্কেটিং করবে, একটা পণ্য কি ভাবে ডিজাইন করে, পণ্য কাষ্টমার কেন কিনবে, আলোচনায় এসব বিষয় উঠে আসবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে আগামী এক বছর সফল দুইশ কর্পোরেট টেইনার তৈরি করবো বলে আশা রাখি। এ বিষয়টিকে আমি একটি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিচ্ছি।

আগামী এক বছর বাংলাদেশে এটি নিয়ে কাজ করবো। অস্ট্রেলিয়াতেপ আমি এন্টাপ্রনিউর তৈরি করি। ইতিমধ্যে অস্ট্রেলিয়ায় দুইশত টেইনার তৈরি করেছি। বিশ্বের টপ এন্টাপ্রনিউরদের সঙ্গে আমি কাজ করছি।