শিশুদের প্রযুক্তি ব্যবহারের বিপক্ষে টিলডা

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

শিশুদের প্রযুক্তি ব্যবহারের বাড়াবাড়ি তাকে সঠিকভাবে পরিণত হয়ে উঠতে দেয় না। অতিরিক্ত প্রযুক্তির ব্যবহার তাকে সামাজিকভাবে চাপের ভেতর রাখে, বিষন্ন করে, এমনকি হতাশ করে দেয়। এখনকার বৈশ্বিক শিক্ষাব্যবস্থায় প্রযুক্তির অতিব্যবহারের বিরুদ্ধে ব্রিটিশ অভিনেত্রী টিলডা সুইনটন।

গতকাল শনিবার ঢাকা আন্তর্জাতিক সাহিত্য উৎসবের তৃতীয় ও শেষ দিনে অন্যতম উৎসব পরিচালক আহসান আকবরের সঞ্চালনায় ‘অন ড্রামডন হিল’ শীর্ষক এক অধিবেশনে এসব কথা বলেন ব্রিটিশ অভিনেত্রী টিলডা সুইনটন। ভিন্নধারার শিক্ষাব্যবস্থা প্রণয়নে স্কটল্যান্ডের ড্রামডনে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেছেন তিনি। গত বছর এ উৎসবে বিকল্প শিক্ষাব্যবস্থা প্রসঙ্গে কথা বলেছিলেন তিনি।

ড্রামডন স্কুলে গতানুগতিক ও তথাকথিত শিক্ষাব্যবস্থার ঠিক উল্টো পদ্ধতিতে পড়াশোনা করানো হয়। সেখানকার শিক্ষার্থীদের তিনটি ধাপে পড়াশোনা করে। চার থেকে সাত বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের কেবল শিক্ষার বিভিন্ন উপকরণের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়। এ ধাপে নেওয়া হয় না কোনো পরীক্ষা। দ্বিতীয় ধাপে সাত থেকে চৌদ্দ বছর বয়স পর্যন্ত হাতে-কলমে বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক কলাকৌশলে অভ্যস্ত করানো হয়। শেষ ধাপে চৌদ্দ থেকে একুশ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের বুদ্ধিবৃত্তিক নানা কাজে যুক্ত করা হয়। দীর্ঘ সময় তাঁদের স্থাপত্য, জীববিজ্ঞান ও মনোবিজ্ঞানের মতো বিষয়গুলো পড়ানো হয়, যা তাদের এখনকার উচ্চশিক্ষা গ্রহণের উপযোগী করে তোলে। টিলডা জানান, তাঁর দুই সন্তান ওই স্কুলেই পড়ছে।

শিক্ষাব্যবস্থার ক্ষেত্রে তিনি ধরাবাঁধা নিয়ম থেকে বেরিয়ে আসার পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের নির্দিষ্ট বিষয় ভাগ করে পাঠ দিতে হবে। হাতে-কলমে শেখানোর প্রচলন চালু করতে হবে সর্বত্র। এতে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষাভীতি দূর হবে। তারা শিক্ষা গ্রহণের পাশাপাশি একে উপভোগ করবে।

আগামী বছর আবার ঢাকায় আসতে চেয়েছেন অস্কারজয়ী এ অভিনেত্রী। ঢাকা আন্তর্জাতিক সাহিত্য উৎসব এবং বাংলাদেশের খাবারে মুগ্ধ হয়েছেন তিনি। শনিবার সন্ধ্যায় ঢাকা লিট ফেস্টের সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন তিনি। বাংলা একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে এ সময় প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। টিলডা সুইনটন বলেন, ‘অসাধারণ মানবিক এক উৎসব এটা। আশা করি, আগামী বছর আবারও আমাদের দেখা হবে। আমি আবারও এ উৎসবে আসতে চাই।’

ঢাকা আন্তর্জাতিক সাহিত্য উৎসবের দ্বিতীয় দিন ‘লাস্ট অ্যান্ড ফাস্ট মেন’ গল্পটি পড়ে শোনান এই অভিনেত্রী। পরে সেই গল্পের দ্বিতীয় অংশ হিসেবে বড় পর্দায় নিজের পরিচালনায় একটি মিউজিক ভিডিও দেখান তিনি। মিউজিক ভিডিওতে অভিনয় করেছে তাঁর প্রিয় কুকুরেরা। এ সময় মঞ্চের এক কোনে মেঝেতে বসে ঢাকার দর্শকদের সঙ্গে নিজেও সেটি উপভোগ কুকুরপ্রেমী টিলডা। ভিডিওতে হ্যান্ডেলের বারক মিউজিকের সঙ্গে স্প্রিঙ্গার স্প্যানিয়াল জাতের চারটি কুকুরকে সমুদ্রসৈকতে খেলা করতে দেখা যায়।

গত মাসে মুক্তি পায় টিলডা সুইনটন অভিনীত নতুন ছবি ‘সাসপিরিয়া’। ৭৫তম ভেনিস আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের জন্য নির্বাচিত হয় ছবিটি।