যেভাবে এলো আইফোনের গরিলা গ্লাস

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

বর্তমানে মধ্যম শ্রেণি থেকে শুরু করে ফ্ল্যাগশিপ পর্যন্ত প্রায় সব স্মার্টফোনেই দেখা যায় কর্নিং গরিলা গ্লাসের ব্যবহার। কোথা থেকে এলো এই গ্লাস, তারই কিছুটা ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনবিসি’র প্রতিবেদনে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কেনটাকি’র হ্যারোডসবার্গ-এ অবস্থিত কর্নিংয়ের পুরানো কাঁচ কারখানা। পঞ্চাশের দশকে চশমার জন্য কাঁচ বানাতো প্রতিষ্ঠানটি। পরবর্তীতে ব্যবসা বদলে আশি’র দশকে এলসিডি গ্লাস প্যানেল বানানো শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি।

এরপর ২০০৭ সালে প্রথম আইফোন উন্মোচনের ছয় মাস আগে কর্নিং প্রধানকে ফোন করেন সেসময়কার অ্যাপল প্রধান স্টিভ জবস। জবস কর্নিং প্রধানকে বলেন আইফোনের জন্য এমন কাঁচ বানাতে যা সহজে ভাঙবে না এবং দাগ পড়বে না।

অ্যাপল প্রধানের কথা মতোই দ্রুত গরিলা গ্লাস বানায় কর্নিং। ফলে কারখানাটিও পুরোপুরি নতুনভাবে সাজানো হয়। এর আগে সাধারণত প্লাস্টিক দিয়ে স্মার্টফোন ঢাকা হতো।

১৮৭৯ সালে এডিসন বাল্বের কাঁচও তৈরি করেছিল কর্নিং।

এখন অ্যাপল, স্যামসাং, এলজি, সনি হুয়াওয়েসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের তৈরি বিশ্বের প্রায় ছয়শ’ কোটি স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, পর্দা ও পরিধেয় ডিভাইসে ব্যবহার করা হয়েছে প্রতিষ্ঠানের তৈরি গরিলা গ্লাস।

গরিলা গ্লাসের জন্য অবশ্য কর্নিংকে প্রাপ্য স্বীকৃতিও দিয়েছিলেন স্টিভ জবস। আইফোনের অভাবনীয় সাফল্যের পর কর্নিং প্রধানকে একটি চিঠি লেখেন তিনি যেখানে উল্লেখ করা হয়েছে- আপনারা এই গ্লাস তৈরি না করলে আমরা আইফোন বানাতে পারতাম না।

স্টিভ জবসের লেখা সেই চিঠি এখন কোথায়? না, কোনো জাদুঘরে নয়, রয়েছে ফ্রেমে বাঁধাই করা অবস্থায় কর্নিং প্রধানের খাস কামরার দেওয়ালে।