হাওর দুর্নীতি: ৩৩ জনের বিরুদ্ধে দুদকের অভিযোগপত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

সিলেট-সুনামগঞ্জ অঞ্চলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে হাওরে বাঁধ নির্মাণে গাফিলতিতে করা মামলায় নতুন ৬ আসামিসহ মোট ৩৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র অনুমোদন করেছে ‍দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য রোববার এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, দুদকের ওই মামলার ৬১ জনের মধ্যে ৩৪ জনকে বাদ দিয়ে নতুন ছয়জনকে আসামি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে মোট ৩৩ জনের বিরুদ্ধে এ অভিযোগপত্র অনুমোদন দেওয়া হয়। 

দুর্বল ও অসমাপ্ত বাঁধ ভেঙে প্লাবন ও ফসলহানির পেছনে হাওরে বাঁধ নির্মাণে দুর্নীতি, অনিয়ম এবং কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগ এনে ২০১৭ সালের জুলাই মাসে ৬১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। 

১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা ও দণ্ডবিধির ৪০৯, ১৬৬, ৫১১ ও ১০৯ ধারায় এই মামলা করা হয়েছিল বলে সে সময় দুদক থেকে জানানো হয়।

মামলার আসামিদের মধ্যে ১৫ জন সিলেট বিভাগ ও সুনামগঞ্জ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা। বাকি ৪৬ জন ঠিকাদার।

মামলা দায়েরের দিনই আসামিদের মধ্যে সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বরখাস্ত নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আফছার উদ্দীন ও স্থানীয় যুবলীগ নেতা ঠিকাদার মো. বাচ্চু মিয়াকে গ্রেপ্তার করছিলেন তদন্তকারীরা। 
এখন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স ইব্রাহিম ট্রেডার্স অ্যান্ড শামিম আহসানের স্বত্ত্বাধিকারী মো. বাচ্চু মিয়া ছাড়াও পানি উন্নয়ন বোর্ড সিলেট অঞ্চলের সাবেক অতিরিক্ত  প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাই (পিএলআর), সাবেক তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. নুরুল ইসলামকে (বর্তমানে পূর্বাঞ্চলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী) অভিযোগপত্র থেকে বাদ পড়েছেন।