ফোল্ডেবল ফোনের দাম কেমন হবে?

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারের জন্য নতুন চমক আসতে যাচ্ছে। টানা কয়েক বছর মোবাইল ডিভাইসকেন্দ্রিক চমকপ্রদ কোনো উদ্ভাবন দেখা যায়নি। বছরের পর বছর একই ডিজাইন ও ফিচারের নতুন স্মার্টফোন গ্রাহক টানতে পারছে না। বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারের প্রবৃদ্ধিতে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। এ পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার উপায় কী?

বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারকে আগের জাঁকজমকপূর্ণ অবস্থায় ফেরাতে ফোল্ডেবল স্মার্টফোনকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। ডিভাইস বাজারের জন্য ফোল্ডেবল ফোন পরবর্তী বড় কিছু অনুষঙ্গ হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

গত বুধবার পঞ্চম প্রজন্মের নেটওয়ার্ক সমর্থিত ফোল্ডেবল ফোন উন্মোচন করেছে দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক স্যামসাং। ‘গ্যালাক্সি ফোল্ড’ নামের ডিভাইসটি প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাপল ও চীনা ব্র্যান্ডগুলোকে টেক্কা দিতে এনেছে প্রতিষ্ঠানটি। চীনা ব্র্যান্ডগুলোও ফোল্ডেবল ফোন উন্মোচনের দৌড়ে পিছিয়ে নেই। স্পেনের বার্সেলোনায় আগামীকাল  শুরু হতে যাওয়া তথ্যপ্রযুক্তি পণ্যের সবচেয়ে বড় প্রদর্শনী মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে (এমডব্লিউসি ২০১৯) ফোল্ডেবল ফোন উন্মোচন করবে হুয়াওয়ে। এছাড়া ফোল্ডেবল ফোন আনার ঘোষণা দিয়েছে শাওমি, অপো, ভিভো ও অ্যাপলের মতো নির্মাতারা।

গ্যালাক্সি ফোল্ডের বিক্রি শুরু হবে এপ্রিলের ২৬ তারিখে। এটি দেখতে সাধারণ স্মার্টফোনের মতোই। ডিভাইসটি ফোল্ড করা অবস্থায় ৪ দশমিক ৬ ইঞ্চি ডিসপ্লের স্মার্টফোন এবং বইয়ের মতো ফোল্ড খুলে ৭ দশমিক ৩ ইঞ্চি ডিসপ্লের ট্যাবলেট হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। এতে একযোগে তিনটি অ্যাপ চালানোর সুযোগ রয়েছে। ডিভাইসটির অ্যাপ কন্টিনিউইটি ফিচারের মাধ্যমে এক মোড থেকে অন্য মোডে চালানো যাবে।

গ্যালাক্সি ফোল্ড স্মার্টফোনে মোট ছয়টি ক্যামেরা আছে। এর মধ্যে তিনটি পেছনে, দুটি ফোল্ডের ভেতরে, একটি সামনের প্যানেলে। ডিভাইসটি যেভাবেই ধরা হোক না কেন ছবি তোলা যাবে। অ্যান্ড্রয়েড ৯.০ পাই চালিত ১২ গিগাবাইট র্যামের হ্যান্ডসেটটিতে ৫১২ গিগাবাইট অভ্যন্তরীণ তথ্য সংরক্ষণের সুবিধা মিলবে।

বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে ডিভাইসের মূল্য একটি বড় ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। বৈশ্বিক ব্র্যান্ডগুলোর প্রিমিয়াম ক্যাটাগরির সব হ্যান্ডসেটের ভিত্তিমূল্য এখন হাজার ডলার কিংবা তারও বেশি। স্মার্টফোন বাজারের প্রবৃদ্ধি কমার জন্য চড়া মূল্যকেও দায়ী করা হচ্ছে। এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, ফোল্ডেবল ফোনের মূল্য কেমন হবে?

বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে স্যামসাংয়ের ফোল্ডেবল ‘গ্যালাক্সি ফোল্ড’ ডিভাইসটি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে। এটির দাম পড়বে ২ হাজার ডলার। ডিভাইসের চড়া মূল্যের কারণে স্মার্টফোন বাজারের প্রবৃদ্ধি স্থবির হয়ে পড়েছে। এক্ষেত্রে দেড় বা ২ হাজার ডলারের ফোল্ডেবল ফোন গ্রাহক পর্যায়ে কতটুকু আকর্ষণ সৃষ্টি করতে পারবে, তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

বিশ্লেষকদের ভাষ্যে, স্মার্টফোন বাজারের প্রবৃদ্ধির জন্য ডিভাইসের চড়া মূল্য বাধা নয়। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বাধা হলো মোবাইল ডিভাইসকেন্দ্রিক উদ্ভাবন ঘাটতি। এক বা দেড় হাজার ডলার মূল্যে পছন্দের ফোন কিনতে আগ্রহী গ্রাহকের কমতি নেই। কিন্তু একজন ক্রেতা হ্যান্ডসেটের জন্য কেন এক থেকে দেড় হাজার কিংবা তার চেয়ে বেশি মূল্য দেবেন, সেটা বড় বিষয়। ফোল্ডেবল ফোন ইতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি করবে বলে আশা করা হচ্ছে। ফোল্ডেবল ফোনের সুবাদে আলাদাভাবে স্মার্টফোন ও ট্যাবলেট ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা ফুরিয়ে আসার আশা করা হচ্ছে।

ডিভাইস নির্মাতারা ফোল্ডেবল স্মার্টফোন নিয়ে আঁটঘাট বেঁধে নেমেছে। বেড়েছে এ ধরনের স্মার্টফোনের পেটেন্ট আবেদন। শীর্ষস্থানীয় ডিভাইস নির্মাতারা ফোল্ডেবল স্মার্টফোন বাজারে যথাসম্ভব দৃঢ় এবং উদ্ভাবনী অবস্থান নিশ্চিতে জোর দিচ্ছে। চলতি বছর অন্তত পাঁচটি ডিভাইস নির্মাতার ফোল্ডেবল স্মার্টফোনের প্রত্যাশা করা হচ্ছে।