ব্রিটেনে ব্রেক্সিট: ১২ মার্চের মধ্যে ভোট দেবেন এমপিরা

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে বলেছেন, আগামী ১২ মার্চের মধ্যে পার্লামেন্টে ব্রেক্সিট চুক্তিতে ভোট দিতে পারবেন ব্রিটিশ এমপিরা।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও আরব লীগের মধ্যকার সম্মেলনে যোগ দিতে মিশর সফরে রওয়ানা হওয়ার প্রাক্কালে এ কথা বলেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

তিনি আরো বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে এ নিয়ে ‘ইতিবাচক’ আলোচনা এখনও চলছে এবং আগামী ২৯ মার্চের মধ্যে যুক্তরাজ্যের ইইউ থেকে বিচ্ছিন্ন হতে পারবে।

এদিকে লেবার নেতা জেরমি করবি প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে বলেছেন, তিনি অহেতুক কালক্ষেপন করছেন। এক টুইট বার্তায় তিনি ব্রিটিশ এমপিদের ব্রেক্সিট ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীর ওপর চাপ প্রয়োগেরও আহ্বান জানান।

তবে ব্রেক্সিট ভোট নিয়ে সকলকে হতাশ হতে নিষেধ করেছেন তেরেসা মে। তিনি বলেন, এটি কার্যকরে সরকারকে মনোযোগ ‘পুরোপুরি’ ধরে রাখতে হবে।

শনিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় অক্সফোর্ডে যুক্তরাজ্যের রক্ষণশীল (টরি) দলের জাতীয় সম্মেলনে কর্মীদের উদ্দেশে তেরেসা মে বলেন, ইইউর সঙ্গে তার আলোচনা ‘চূড়ান্ত পর্বে’ পৌঁছেছে। এ সময় সবচেয়ে খারাপ যা হতে পারে তা হচ্ছে মনোযোগ সরিয়ে নেয়া।

চুক্তিবিহীন ব্রেক্সিট আটকাতে বিচ্ছেদ কার্যকরের সময়সীমা পিছিয়ে দেয়ার পক্ষে ভোট দিতে পারেন- সম্প্রতি মন্ত্রিসভার ইইউপন্থী তিন সদস্যের এমন ইঙ্গিতের পর মে এ কথা বলেন।

সাবেক টরি মন্ত্রী স্যার অলিভার লেটউইন ও লেবার পার্টির ইভেত কুপার ব্রেক্সিট নিয়ে নতুন একটি সংশোধনী উত্থাপন করেছেন, যেখানে মার্চের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত ইউরোপের সঙ্গে কোনো চুক্তিতে পৌঁছানো না গেলে ব্রেক্সিট কার্যকরের সময়সীমা পিছিয়ে দেয়ার প্রস্তাব রয়েছে। এটি পাস হলে ব্রেক্সিটের জন্য ২৯ মার্চের পরও সময় পাবে ব্রিটিশ সরকার। তেরেসা মে অবশ্য এ পথে হাঁটতে রাজি নন।

তেরেসা বলেন, আগামী মঙ্গলবার ব্রেক্সিট সেক্রেটারি ও অ্যাটর্নি জেনারেলসহ আমরা ব্রাসেলসে যাচ্ছি। ফলে আমরা একটি অর্থপূর্ণ ভোটের আয়োজন করতে পারব এবং সেটি ১২ মার্চের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে।

ইতিমধ্যে তেরেসা ইউরোপীয় কাউন্সিল প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্কের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। মিসরে গিয়ে অন্যান্য ইইউ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি। ব্রেক্সিট নিয়ে মন্ত্রিসভা ও এমপিদের নানামুখী অবস্থানের কারণে চুক্তি ছাড়াই বিচ্ছেদ কার্যকরের দিকে নিয়ে যাচ্ছে বলে বিশ্লেষকরা সতর্ক করছেন।