পরপর ৫ বিস্ফোরণ তারপরই উড়ে আসে পাক ফাইটার জেট

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

‘মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৩টা। হঠাৎ একটা জোর বিস্ফোরণ। ৪-৫ মিনিটের মধ্যে ফের একইরকম তীব্রতায় বিস্ফোরণ। পরের ১৫ সেকেন্ডের মধ্যে আরও একটা বিস্ফোরণ। এইভাবে পরপর পাঁচটি বিস্ফোরণে গুঁড়িয়ে দেয়া হয় জইশ-ই-মোহাম্মদের বালাকোট জঙ্গি প্রশিক্ষণ শিবির।’


বিবিসিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ভারতীয় বিমানবাহিনীর হামলার কথা এভাবেই জানান স্থানীয় দুই বাসিন্দা। অভিযান শেষে ভারতীয় বিমান চলে যাওয়ার কিছুক্ষণ পরই উড়ে আসে পাক জঙ্গিবিমান। খবর ইকোনমিক টাইমসের।

মঙ্গলবার পাকিস্তানের মুজফফরাবাদ, চাকতি ও বালাকোট- এই তিন জায়গায় হামলা চালায় ভারতীয় বিমানবাহিনী। পুলওয়ামা জঙ্গি হামলায় ৪০ সিআরপিএফ জওয়ানের প্রাণ যায়। সেই জঙ্গি হামলার প্রত্যাঘাত করে ভারত।

বায়ুসেনার ১২টি মিরাজ ২০০০ যুদ্ধবিমান আন্তর্জাতিক সীমান্ত পেরিয়ে ৮০ কিলোমিটার ভেতরে ঢুকে অনেকগুলো জইশ জঙ্গি প্রশিক্ষণ শিবির ধ্বংস করে দেয়। মৃত্যু হয় সিনিয়র কমান্ডারসহ মোট ৩০০ জঙ্গির। ওই সময় কী শুনেছিলেন গ্রামবাসী?

এক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, ‘রাত ৩টা নাগাদ প্রথমে একটা বিস্ফোরণ হয়। ৪-৫ মিনিট পর ফের বিস্ফোরণ হল। এর ১৫ সেকেন্ড পর ফের বিস্ফোরণ। চতুর্থবার বিস্ফোরণ হল। তারপর গ্রামবাসী আতঙ্কে ঘর থেকে বেরিয়ে পড়েন।

তার কয়েক মিনিট পর পাকিস্তানি বিমান আকাশে ঘুরছিল। ভারতীয় বিমান তখন চলে গিয়েছিল।’ আর একজন বলেন, ‘পরপর পাঁচবার ভয়ংকর আওয়াজ হয়। কিছু পরে জানতে পারি বিস্ফোরণ হয়েছে। তারপর আকাশের বিমান ওড়ার আওয়াজ থেমে গেল। কিছু পরে আমাদের পাকিস্তানি বিমান উড়ে এলো। তখন ভারতীয় বিমান ছিল না।’

প্রেসিডেন্ট ভবন থেকে নিয়ন্ত্রণ করছিলেন মোদি : বিমান হামলার পুরো প্রক্রিয়াই প্রেসিডেন্ট ভবন থেকে নিয়ন্ত্রণ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সামনে রাখা ছিল হামলার নীল নকশা। বিমানবাহিনীর প্রতিটি পদক্ষেপের খবর নিচ্ছিলেন ঠাণ্ডা মাথায়।

মিনিটে মিনিটে জেনে নিচ্ছিলেন ঘটনার আপডেট। কতদূর এগোনো গেল? সব ঠিক আছে তো? বালাকোটে ঢোকা গেছে? তার আগেই একাধিক হামলার নকশা রচনা করে তুলে দেয়া হয় বিমানবাহিনী প্রধান বীরেন্দ্র সিং ধানওয়াকে।