দুই ঘণ্টার আগুনে পুড়ল হাজারো স্বপ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

পুরান ঢাকার চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার সপ্তাহ পেরোতে না পেরোতেই আগুনে পুড়ল ভাসানটেকের জাহাঙ্গীর বস্তির হাজারো ঘরবাড়ি। মধ্যরাতের আগুনে মাত্র আড়াই ঘন্টায় নিঃস্ব হয়েছে হাজারো পরিবার। ফায়ার সার্ভিসের ১৮টি ইউনিট আড়াই ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নেভাতে সক্ষম হলেও বাঁচাতে পারেনি হাজারো মানুষের স্বপ্নকে।

 

বস্তিবাসীদের তিল তিল করে জমানো কষ্টের টাকা, ঘরের তৈজসপত্র, পরিধানের কাপড়সহ থাকার ঘরগুলো মুহূর্তের মধ্যেই পুড়ে ছাই হয়ে যায়। অনিশ্চিত এক পরিস্থিতিতে পড়েছেন কয়েক হাজার বস্তিবাসী।

বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, এদিকে-সেদিকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে পুড়ে যাওয়া টিন, আসবাবপত্র। পড়ে আছে আংশিক পুড়ে যাওয়া শখের কোনো জিনিস। কোথাও বা শুধু পোড়া ভিটা। ঘরের আসবাবের মধ্যে লোহা ও স্টিলের আসবাবগুলো পড়ে আছে দুমড়ে-মুচড়ে। পুড়ে যাওয়া ঘর বাড়ির টিনগুলো সরানো হচ্ছে, তবে সরছে না সাধারণ মানুষের আহজারি। বস্তিবাসীর চোখে মুখে হতাশা ও ক্লান্তি। এমনই চিত্র রাজধানীর ভাসানটেকের জাহাঙ্গীর বস্তির।

গতকাল দিবাগত রাত দেড়টার দিকে লাগা আগুনে সেখানকার সহস্রাধিক ঘর পুড়ে যায়। ওই বস্তিতে বসবাস করা মানুষগুলো সবকিছু হারিয়ে আজ অসহায়। জীবনযুদ্ধে সব হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে তারা।

 

রাতের সেই ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর থেকে বস্তিবাসীর ঠাঁই মিলেছে খোলা আকাশের নিচে। বস্তির ধ্বংসস্তুপে আগুন থেকে রক্ষা পাওয়া জিনিসপত্র খুঁজছিলেন এক নারী। তিনি বলেন, ‘গরিবের উপরই সবসময় গজব আসে কেন? কি দোষ ছিল আমাদের? শহরেতো আর থাকার মতো জায়গা নাই। এখন আমরা কোথায় যাব, কি করব, কিছু ভেবে পাচ্ছি না।’

তার মতো অনেকেই ঘরের পোড়া ছাইয়ের মধ্যে বেঁচে থাকার কোনো রসদ আছে কি না তা খুঁজছেন। আগুনে বেঁচে থাকার সব কিছু পুড়ে যাওয়ার পরও ধ্বংস হওয়া ছাইভস্ম হাতড়ে তারা খুঁজে চলেছেন বাঁচার মূলধন।