মাসুদ আজহার বেঁচে আছে, দাবি পাকিস্তানের

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহম্মদের প্রধান মাসুদ আজাহার মারা যাননি। তিনি এখনও বেঁচে আছেন বলে জানিয়েছেন মাসুদের পরিবারের ঘনিষ্ঠ আত্মীয়রা। গতকাল রোববার দেশটির সংবাদমাধ্যমগুলোতে এ তথ্য উঠে এসেছে।

পাকিস্তানের জিও উর্দু নিউজ জানিয়েছে, মাসুদ আজাহার মারা গেছে বলে যে খবর রটানো হচ্ছে তা ভুল। জইশ প্রধান বেঁচে আছে। কিন্তু তার শারীরিক পরিস্থিতি সম্পর্কে কোনো তথ্য দেওয়া হয়নি। এ সম্পর্কে পাক সরকারের তরফেও কিছু জানান হয়নি।

জইশ প্রধানের মৃত্যু নিয়ে জল্পনা হতে থাকে রোববার বিকেল থেকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় তুমুল আলোচনা হতে থাকে।  তবে কোন সূত্র থেকে এই খবর ছড়াল তা স্পষ্ট হয়নি।

এ প্রসঙ্গে সংবাদসংস্থা পিটিআইকে পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরি বলেছেন, ‘এখনও এ ব্যাপারে আমার কিছুই জানা নেই।’

এদিকে মাসুদ আজাহারের মৃত্যুর খবরকে ঘিরে তদন্ত শুরু করেছে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে নানা মাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে মাসুদের ব্যাপারে তথ্য জানার কাজ শুরু হয়েছে বলে জানায় এনডিটিভি।  তবে ভারত সরকারের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়, মাসুদ নিয়ে কোনো তথ্যই নেই তাদের কাছে।

২০০০ সালে জইশ-ই-মোহম্মদের প্রতিষ্ঠা করেন মাসুদ আজাহার। তার আগেই ঘটে গিয়েছিল কান্দাহার বিমান অপহরণ কাণ্ড। মাসুদকে ছাড়াতে ভারতের একটি অসামরিক বিমান ছিনতাই করে জঙ্গিরা। অন্য কোনো উপায় না পেয়ে মাসুদকে মুক্তি দেয় ভারত সরকার।

এই ঘটনার বছর দুয়েক বাদে জইশের প্রতিষ্ঠা করে সে। পাকিস্তানের ভাওয়ালপুরের এই বাসিন্দা ভারতের একাধিক জঙ্গি হামলার মাস্টারমাইন্ড বলে অভিযোগ।  গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামার জঙ্গি হামলা নেপথ্যে ছিলেন তিনি। এ হামলায় ভারতের ৪৪ জন জওয়ান নিহত হন।

জইশ প্রধানের শারীরিক অবস্থা নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে দিন কয়েক আগে। সিএনএনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে, পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মামুদ কুরেশি জানান, মাসুদ পাকিস্তানের সেখানেই আছে। তার শরীর খুব খারাপ।

এর পর জানতে চাওয়া হয়, পাকিস্তানে আছে জানার পরও তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না কেন? জবাবে ইমরান খান মন্ত্রিসভার এই সদস্য বলেন, ‘ভারত তার বিরুদ্ধে পাকা প্রমাণ দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’