ফিল্মের উত্থান পতন থাকবেই: রিয়াজ

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

একটি জায়গায় একটি সিনেমা হল থাকবে তাহলে সিনেমা হলে দর্শক বাড়বে এবং সিনেমার লগ্নীকৃত টাকা ফেরত পাবে বলে ধারণা করেন হল মালিকরা। অন্যদিকে প্রদর্শক সমিতির নেতারা মনে করেন একটি জায়গায় একটি হলে চলে না, অন্য একাধিক হল চলবে কেমনে? এমন প্রশ্ন তাদের সমাধানের উত্তরণের উপায় না খুঁঝে তারা হল বন্ধসহ বিভিন্ন কর্মসূচী ঘোষণা করেন। বর্তমান সময়ে মাল্টিপ্লেক্স যুগ। এখন একুটি জায়গায় সিনেমা হল কয়টি হলো তা নিয়ে ভাবা যাবে না। একাধিক হল কিংবা একটি হল থাকলেই চলবে। তাই সরকারি বা বেসরকারি উদ্যোগে প্রত্যেক জেলায় জেলায় এখন সিনেপ্লেক্স হওয়া উচিত। কারণ ফিল্মের উত্থান পতন সবসময়ই ছিল এবং থাকবে। এভাবেই আমাদের সময় ডট কমকে কথাগুলো বলছিলেন এক সময়ের জনপ্রিয় নায়ক চিত্রনায়ক রিয়াজ আহমেদ।

তিনি আরও বলেন, ‘হলিউড, বলিউড যাই বলেন সারা পৃথিবীতে কোনো দেশেই সারা বছরই সুপারহিট ছবি থাকে না। এইসব জায়গায় বছরে দুই একটা সিনেমা আলোচনায় থাকে। সব কিছু আলোচনায় থাকে না। আমাদের ভাবতে হবে আমাদের বর্তমান সিনেমার দর্শকদের নিয়ে। তাহলে সিনেমার অবস্থার পরিবর্তন হবে।’

 

সব দোষ বাংলাদেশের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিকে দিলে বেঁচে যাওয়া নয়। আমাদের প্রত্যেকের দ্বায়বদ্ধতা থাকতে হবে। কারণ একটি সিনেমা বানানোর আগে পরিচালকদের ভাবতে হবে কোন গল্পের ছবি দর্শক দেখতে চান। দর্শকদের চাহিদা অনুযায়ী সিনেমা তৈরি করতে হবে তাহলে সিনেমা শিল্পের পরিবর্তন হবে। ভালো সিনেমা হলের পাশাপাশি ভালো মানের ছবি দর্শকদের উপহার দিলে অবশ্যই সিনেমার ব্যবসা ঘুরে দাঁড়াবে।

সিনেমা হল বন্ধের বিষয়টির তীব্র সমালোচনা করেছেন চিত্রনায়ক রিয়াজ। তিনি বলেন, ‘কিছু কিছু মানুষ অনেক আগে থেকেই চাচ্ছে বাংলাদেশে বিদেশি ছবি চলুক। সেই লক্ষ্যে তারা দীর্ঘদিন ধরে কাজও করে যাচ্ছে। তাদের নানা রকমের ষড়যন্ত্র চলছে। আর এখন প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ ভাই হল বন্ধের যেই আলটিমেটাম দিয়েছেন তার পরিপ্রেক্ষিতে বলবো এতো বড় একটা সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে উনাদের প্রপার লোকজনের সঙ্গে বসা উচিৎ ছিল।

দেশের বেশকিছু সিনেমা হলের বর্তমান পরিবেশ একদমই ভালো না। সিনেমা হলের ফ্যান নষ্ট, সিট ভালো না। এমন অভিযোগ প্রায়ই আসতে থাকে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে রিয়াজ বলেন, সিনেমা হলের পরিবেশ ঠিক করতেই হবে। কারণ দর্শকদের রুচির পরিবর্তন হয়েছে। এখন যদি এই হলে বিদেশী সুপারস্টারদের যদি ছবি চালানো হয় তাহলে দর্শক আসবে না। তাই বলবো সিনেমা হলের পরিবেশ পরিবর্তন করতে হবে।

বর্তমান সময়ের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির পরিবর্তনের জন্য দেশে ভালো মানের সিনেমা নির্মাণের বিকল্প নেই। হল সংস্কারের পাশাপাশি যৌথ প্রযোজনার সিনেমা তৈরি। নিজস্ব মৌলিক গল্পের সিনেমা দর্শকদের উপহার দিতে হবে। তাহলেই সিনেমার পবিরর্তণ হবে বলে তিনি জানান।

১৯৯৫ সালে মুক্তি পায় রিয়াজ অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র ‘বাংলার নায়ক’। পরের বছর খ্যাতনামা চলচ্চিত্রকার দিলীপ বিশ্বাসের ‘অজান্তে’ ও মোহাম্মদ হোসেনের ‘প্রিয়জন’ সিনেমায় অভিনয় করেন। ‘প্রিয়জন’ই একমাত্র চলচ্চিত্র যাতে রিয়াজ অকালপ্রয়াত সালমান শাহের সঙ্গে অভিনয় করেছেন। শাবনূর ও পূর্ণিমার সঙ্গে জুটি বেঁধে সাফল্য পেয়েছেন রিয়াজ। তিনি সালমান শাহ এর পরে চিত্রনায়িকা শাবনূরের সঙ্গে সেরা জুটি।