আবরারের নামে ফুটওভার ব্রিজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

রাজধানীর প্রগতি সরণি এলাকার যে স্থানে বাসচাপায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরী নিহত হয়েছেন সেখানে আবরারের নামে ফুটওভারব্রিজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে। বুধবার সকালে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম এই ফুটওভারব্রিজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

এসময় মেয়র বলেন, নিরাপদ সড়ক আমাদের সবার দাবি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এটির ব্যাপারে সর্বাত্বক ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন। আমরা এ বিষয়ে কাজ করছি। আজকেই আমরা একটি মিটিংয়ে বসব। যত দ্রুত সম্ভব আমরা সড়কে শৃংখলা ফিরিয়ে আনব।

মেয়র জানান, ফুটওভারব্রিজটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের জন্য আবরারের বাবা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আরিফ আহাম্মেদ চৌধুরীকে অনুরোধ করা হলেও তিনি আসতে পারেননি।

এদিকে বাসচাপায় আবরারের মৃত্যুর ঘটনায় নিরাপদ সড়কের দাবিতে আজও সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছেন শিক্ষার্থীরা। গতকাল শিক্ষার্থীরা সন্ধ্যা পর্যন্ত বিক্ষোভ চালায় এবং বুধবার আবার অবস্থান নেওয়ার ঘোষণা দিয়ে রাস্তা ছেড়ে যায়।

পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী দ্বিতীয় দিনের মতো সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার মূল ফটকের সামনে জড়ো হয়ে ওই সড়কের যান চলাচল বন্ধ করে দেয় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

বিইউপির শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (এআইইউবি), সিদ্ধেশ্বরী কলেজ এবং নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও এ বিক্ষোভে যোগ দিয়েছে।

এর আগে গতকাল মঙ্গলবার দুর্ঘটনার পরপরই আবরারকে চাপা দেওয়া সুপ্রভাত বাসটির (ঢাকা মেট্রো-ব-১১-৪১৩৫) চালক সিরাজুল ইসলামকে (২৪) আটক করে গুলশান থানা পুলিশ।

নিহত আবরার আহমেদ চৌধুরী (২০) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আরিফ আহমেদ চৌধুরীর বড় ছেলে। আবরার বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসে (বিইউপি) আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৭টার দিকে শিক্ষার্থীদের বহনকারী বিইউপির একটি বাস প্রগতি সরণিতে দাঁড়িয়েছিল। ওই বাসেই বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার কথা ছিল আবরারের।

বাসে ওঠার জন্য নিয়ম মেনেই জেব্রাক্রসিং দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন তিনি। ওই সময় পাল্লাপাল্লি করে আসা সুপ্রভাত পরিবহনের দুই বাসের মধ্যে চাপা পড়েন আবরার। গুরুতর আহত আবরারকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নেয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।