প্রতি দুই-তিন সপ্তাহে একটি কোম্পানি অধিগ্রহণ করে অ্যাপল

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

অ্যাপল প্রতি দুই থেকে তিন সপ্তাহ অন্তর গড়ে অন্তত একটি কোম্পানি অধিগ্রহণ করে। গত ছয় মাসে প্রতিষ্ঠানটি ২০ থেকে ২৫টি স্টার্টআপ অধিগ্রহণ সম্পন্ন করেছে। এসব প্রতিষ্ঠান অধিগ্রহণের তথ্য সচরাচর প্রকাশ করা হয় না। এক্ষেত্রে কিছুটা গোপনীয়তা নীতি মেনে চলা হয়। সিএনবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাত্কারে অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) টিম কুক এসব কথা বলেছেন।

সাক্ষাত্কারে টিম কুক বলেন, বৈশ্বিক প্রযুক্তি খাতে জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর দ্বারা তুলনামূলক ছোট ও সংশ্লিষ্ট স্টার্টআপ অধিগ্রহণের সংস্কৃতি নতুন নয়। ব্যবসায় পরিধি এবং দক্ষ কর্মী বাড়াতে এ ধরনের অধিগ্রহণ করা হয়। অ্যাপল বিভিন্ন প্রযুক্তি স্টার্টআপ অধিগ্রহণের তথ্য আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা দেয় না। মেধাবী প্রযুক্তি কর্মকর্তা খুঁজে বের করা এবং মেধা সম্পত্তি অর্জনে ছোট ও সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তি স্টার্টআপ অধিগ্রহণ করে অ্যাপল।

সিএনবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৮ সালের নভেম্বর থেকে গত এপ্রিলের শেষ পর্যন্ত অ্যাপল যেসব স্টার্টআপ অধিগ্রহণ করেছে, তা থেকে একটা বিষয় পরিষ্কার যে অধিগ্রহণে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে অ্যাপল। এর অধিগ্রহণ সক্ষমতারও বহিঃপ্রকাশ এসব অধিগ্রহণ। চলতি অর্থবছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-মার্চ) আর্থিক খতিয়ানে অ্যাপল জানিয়েছে, তাদের কাছে ২২ হাজার ৫৪০ কোটি ডলার নগদ অর্থ গচ্ছিত রয়েছে। শুধু তা-ই নয়, নগদ মজুদ অর্থের ক্ষেত্রে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী প্রতিষ্ঠান অ্যাপল। যে কারণে কার্যক্রম সম্প্রসারণ এবং কর বাবদ আগামী পাঁচ বছরে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে ৩৫ হাজার কোটি ডলার অবদান রাখার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

টিম কুক তার সাক্ষাত্কারে বলেন, টেক্সাসের অস্টিনে নতুন ১০০ কোটি ডলারের ক্যাম্পাসে বিনিয়োগ সম্পন্ন করার পর অন্য কোনো লক্ষ্য বাস্তবায়নে মনোযোগ দেবে এবং বিনিয়োগ করবে অ্যাপল। এর পরও নগদ অর্থ মজুদ থাকলে তা বিনিয়োগের লক্ষ্য ঠিক করা হবে। কৌশলগত উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন এবং আমাদের কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবকিছুই আমরা কিনতে চাই। মূলত প্রতিষ্ঠানকে আরো সমৃদ্ধিশালী করার লক্ষ্য থেকে অধিগ্রহণ করা হয়। যে কারণে প্রতি দুই থেকে তিন সপ্তাহে গড়ে অন্তত একটি সংশ্লিষ্ট স্টার্টআপ অধিগ্রহণ করা হয়।

অ্যাপল গত বছর বেশ কয়েকটি হাই-প্রোফাইল অধিগ্রহণ সম্পন্ন করেছে। এগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো ডিজিটাল ম্যাগাজিন সাবস্ক্রিপশন সার্ভিস টেক্সচার। খুব বেশিদিন হয়নি ‘অ্যাপল নিউজ প্লাস’ নামে একটি সংবাদ সেবা চালু করেছে অ্যাপল। সেবাটিকে আরো গ্রহণযোগ্য করে তুলতে টেক্সচার অধিগ্রহণ করেছিল প্রতিষ্ঠানটি। টেক্সচারের কার্যক্রম এরই মধ্যে অ্যাপল নিউজ প্লাসের সঙ্গে একীভূত করা হয়েছে। সামান্য অর্থ ব্যয়ে মানুষ অ্যাপল নিউজ প্লাস সেবা ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরনের প্রকাশনায় প্রবেশাধিকার পাচ্ছে।

সিএনবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, বছরে একাধিক অধিগ্রহণ সম্পন্ন করলেও এসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কোম্পানি খুব কম রয়েছে। ২০১৪ সালে সর্বশেষ উল্লেখযোগ্য একটি প্রতিষ্ঠান অধিগ্রহণ করেছিল অ্যাপল। সে সময় ৩০০ কোটি ডলারে বিটসকে কিনে নিয়েছিল প্রতিষ্ঠানটি। বিটসের কার্যক্রম এরই মধ্যে অ্যাপল মিউজিক স্ট্রিমিং সেবায় রূপান্তরিত করা হয়েছে। এছাড়া অধিকৃত বিটসের আওতায় বিটস ব্র্যান্ডের হেডফোন বিক্রি করছে অ্যাপল।

বিশ্লেষকদের মতে, অ্যাপলের হাতে যে অর্থ মজুদ আছে তা দিয়ে যেকোনো মুহূর্তে ইলেকট্রিক গাড়ি নির্মাতা টেসলা কিংবা মার্কিন মিডিয়া সার্ভিস প্রোভাইডার কোম্পানি নেটফ্লিক্স অধিগ্রহণের সক্ষমতা রাখে অ্যাপল।