চিতলমারীতে আওয়ামী লীগের অফিসে তালা মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পেলেন ইউপি সদস্য

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

বাগেরহাটের চিতলমারীতে স্থানীয় বিরোধের জেরে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের অফিসে তালা লাগানোর ঘটনায় কায়েম আলী শেখ নামের এক ইউপি সদস্যকে আটক করে পুলিশ। আটকের ১২ ঘন্টা পরে শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যস্থতায় মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পান তিনি। বিষয়টি নিয়ে  স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ ও অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে।
স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা জানান, স্থানীয় রাজনৈতিক বিরোধের জেরে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার বড়বড়িয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেয় ইউপি সদস্যসহ তার লোকজন। পুলিশ খবর পেয়ে রাতেই বিএনপি নেতা ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য কায়েম আলী শেখকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। 
উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এসএম মাহাতাব উজ জামান বলেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও তার পরিবারের লোকজনের মধ্যস্থতায় বিষয়টি তিনদিনের মধ্যে সমাধানের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাকে ছাড়িয়ে আনা হয়েছে। সঠিক সমাধান না হলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
চিতলমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পীযূষ কান্তি রায় বলেন, আওয়ামী লীগের অফিসে তালা দেওয়ার ঘটনা খুবই দুঃখজনক। আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তি হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করি।
চিতলমারী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. একরাম হোসেন বলেন, আওয়ামী লীগ অফিসে তালা লাগানোর অভিযোগে ইউপি সদস্য কায়েম আলী শেখকে আটক করা হয়েছিল। পরে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এসএম মাহাতাব উজ জামান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান স্বপ্না ও বড়বাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুদ সরদারসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাদের অণুরোধে মুচলেকা নিয়ে ইউপি সদস্যকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।