ডেঙ্গু চিকিৎসায় হিমশিম খাচ্ছেন ডাক্তার-নার্সরা

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

ডেঙ্গুর প্রকোপ অপ্রতিরোধ্য হয়ে পড়েছে। প্রতিদিনই ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছেই। রোগী সামলাতে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিত্সক ও নার্সরা। রোগীর ভিড়ে রাজধানীর প্রায় সব হাসপাতালে সেবা ব্যবস্থাপনাও হিমশিম খাচ্ছে। এমনিতে সরকারি হাসপাতালগুলোতে চাহিদার তুলনায় চিকিত্সক-নার্সের তীব্র সংকট। তার ওপর ডেঙ্গু রোগীর ভয়াবহ চাপ। শিশু-কিশোর, বৃদ্ধ ও নারী-পুরুষসহ সব বয়সের মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হচ্ছেন।

 

 

বিরামহীন সেবা দিতে গিয়ে অনেক চিকিত্সক-নার্স অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। এদিকে ডেঙ্গু রোগীদের ভোগান্তির যেন শেষ নেই। অযথা নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রেখে বাণিজ্য করছে এক শ্রেণির বেসরকারি হাসপাতাল। ​

আবার প্রয়োজন না থাকলেও সরকারি হাসপাতালে সিট নেই উল্লেখ করে বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউতে পাঠিয়ে দিচ্ছেন এক শ্রেণির চিকিত্সক। ফলে হাসপাতালে চিকিত্সা নিতে যাওয়া ডেঙ্গু রোগীরা এখন আইসিইউ আতঙ্কে ভুগছেন।

শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কিটতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. আব্দুল লতিফ  জানান, শুধু জুন-জুলাই মাস নয়, সারা বছর সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে রাজধানীসহ সারাদেশ পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। পানি জমে রাখতে দেওয়া যাবে না। তাই কোথাও যাতে স্বচ্ছ পানি জমাটবদ্ধ না থাকে সেজন্য সারাবছর কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে। ২৪ ঘণ্টা পানি জমাট রাখতে দেওয়া যাবে না।

প্রখ্যাত চর্ম ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এমএ হুদা জানান, ডেঙ্গু জ্বরের সাথে চুলকানি হয় ৬০ ভাগ রোগীর। এছাড়া দানাদানা র্যাশ ও হামের মতো উত্সর্গ দেখা দিতে পারে।

দেশে ডেঙ্গু পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণহীন। কার্যকর ওষুধ ছিটানো হচ্ছে না বলেই ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি অব্যাহত আছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২৩৪৮ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। রাজধানীর বাইরের বিভিন্ন জেলায় এক হাজার ৬৪ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গু নিয়ে ভর্তি হয়েছেন ১ হাজার ২৮৪ জন। এ নিয়ে চলতি বছর ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যা ২৯ হাজার ৯১২ জনে দাঁড়িয়েছে। আর একদিনে ইতালি প্রবাসী নারীসহ ৮ জন ডেঙ্গুতে মারা গেছেন। এই অবস্থায় চিকিত্সা সেবা নিশ্চিত করতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ৫০টি আইসিইউ শয্যা বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ঈদুল আজহার ছুটিতে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালের হেল্পডেস্ক খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদফতরে ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ মোকাবিলার লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত নিয়মিত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় আরও কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের ডেঙ্গু রোগীদের স্থানীয়ভাবে ন্যাশনাল গাইড লাইন অনুযায়ী চিকিত্সা নিশ্চিত করতে হবে। ঈদের ছুটিতে হেলথ কমিউনিটি ক্লিনিকের সার্বক্ষণিক সেবা চালু রাখতে প্রয়োজনীয় জনবল ও লজিস্টিক নিশ্চিত করতে হবে। এছাড়া ঈদের ছুটিতে যারা ঢাকা ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে যাবেন এ সময় তারা কী করবেন আর কী করবেন না, সে বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এটি বিটিআরসির মাধ্যমে এসএমএস করে সবাইকে জানিয়ে দেওয়া হবে।

এদিকে ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলেও এডিস মশা মারার কার্যকর আনার উদ্যোগে নেই গতি। অনেকটা ধীর গতিতেই চলছে প্রক্রিয়া। এমনিতেই ওষুধ আনার প্রক্রিয়াটা অনেক জটিল। প্রথমে ফিল্ড টেস্ট করতে হবে। এরপর ল্যাব টেস্ট শেষে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদন নিতে হয়। পরেই আনা যায় ওষুধ। এতগুলো ধাপ অতিক্রম করতে দীর্ঘ সময়ের প্রয়োজন। অনেকে বলছেন, কার্যকর ওষুধ আনতেই ডেঙ্গুর মৌসুম চলে যাবে।

ডেঙ্গুতে মারা গেলেন যারা:

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল চিকিত্সাধীন অবস্থায় মারা গেছেন ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার মোহাম্মদ কালামের ছেলে হাবিবুর রহমান (২১), মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার তেতুয়াধারা গ্রামের কৃষক আমজাদ মন্ডল (৫২) ও চাঁদপুরের হাজীগঞ্জের আহমেদপুরের বাসিন্দা মনোয়ারা বেগম (৭২)। হাবিবুর রহমান ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ৩১ জুলাই ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি হন। এদিকে স্বামী-সন্তান নিয়ে দেশে বেড়াতে এসে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে সোমবার রাতে মারা যান ইতালি প্রবাসী হাফসা লিপি (৩৪)। হাফসার স্বামী সর্দার আব্দুল সাত্তার তরুণও (৩৬) ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। দুই সন্তান অলি (১২) ও আয়ানকে (৬) নিয়ে সপ্তাহ তিনেক আগে দেশে এসে কলাবাগানে উঠেছিলেন তারা। তাদের বাড়ি শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ থানার সর্দার বাড়ি। দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে কিশোর রবিউল ইসলামের মৃত্যু হয়েছে। রবিউল ইসলাম (১৭) ঠাকুরগাঁও জেলার রানীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ গ্রামের নয়ন ইসলামের ছেলে।

ঢাকা মেডিকেলে আইসিইউ শয্যা বাড়ছে ৫০টি:

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) ৫০টি বেড বাড়ানোর ব্যাপারে গতকাল মহাখালীতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার এক সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে। সভায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. সানিয়া তহমিনা, সমীর কান্তি সরকার, পরিচালক (এমআইএস) ডা. সত্যকাম চক্রবর্তী, লাইন ডিরেক্টর (হাসপাতাল সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট) ডা. এমএম আকতারুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

হাসপাতালে প্রচুর রোগী, চিকিৎসক-নার্সদের বিরামহীন সেবা:

এদিকে চিকিত্সক-নার্সদের বিরামহীন সেবায় রোগী ও তাদের স্বজনরা খুশি। বেড না পেলেও হাসপাতালের সব রোগীকে চিকিত্সার ক্ষেত্রে কোন অবহেলা করছেন না চিকিত্সক-নার্সরা। গতকাল সরেজমিনে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে দেখা গেছে, ডেঙ্গু জ্বরের চিকিত্সার জন্য নির্ধারিত ওয়ার্ড ও বেডগুলো (বিছানা) রোগীতে ভর্তি। রোগীর স্বজনদের ভিড়ে হাঁটারও জায়গা মিলছে না। জরুরি বিভাগেও ডেঙ্গু রোগীদের ভিড় দেখা গেছে। রাজধানীর ৫০০ শয্যার মুগদা হাসপাতালের প্রায় সব বিছানায় নারী, পুরুষ ও শিশুতে পরিপূর্ণ।

আওয়ামী লীগের ডেঙ্গু মনিটরিং সেলের নেতৃবৃন্দের বিএসএমএমইউ পরিদর্শন:

আওয়ামী লীগের ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও চিকিত্সা মনিটরিং সেল-এর নেতৃবৃন্দ গতকাল বেলা সাড়ে ১১টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেঙ্গু চিকিত্সাসেবা সেলের কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।

ডেঙ্গুতে ছেলেকে হারিয়ে মায়ের হূদয়স্পর্শী স্ট্যাটাস:

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত সোমবার বিকালে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিত্সাধীন অবস্থায় মারা যায় ৭ বছর বয়সী ইরতিজা শাহাদ প্রত্যয়। ছেলে হারানোর শোক কাটতে না কাটতেই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি চাঁদ সুলতানা চৌধুরানী।