‘বিএনপির শাসনামলে বাংলাদেশ জঙ্গিদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছিল’-তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক | র‍্যাপিড পিআর নিউজ.কম

বিএনপিকে গণ-মানুষের কল্যাণে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, 'বিএনপির শাসনামলে দেশ জঙ্গি ও সন্ত্রাসীদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছিল।' রবিবার তথ্য মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এক প্রেস ব্রিফিংকালে তিনি এ কথা বলেন।

 

তিনি বলেন, 'জিয়াউর রহমান অস্ত্রের জোরে ক্ষমতা দখল করেন এবং তার সহধর্মিণী বেগম খালেদা জিয়া ১০ বছরের শাসনামলে দেশে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিষ্ঠা করেন। ক্ষমতার লোভে অন্যান্য দল থেকে অনেক নেতা বিএনপিকে যোগদান করেন। বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান এদের লোভ দেখিয়ে তার দলভারী করেন। বিএনপি সুশাসনের পরিবর্তে দেশকে জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদের অভয়ারণ্যে পরিণত করে। তাদের আমলে এদেশ পাঁচবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। বিরোধী দল হিসেবেও বিগত ১০ বছর ধরে বিএনপি জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদের ভিত্তিতে তাদের রাজনীতি করেছে এবং এখনো তা অব্যাহত রয়েছে, যা অত্যন্ত দুঃখজনক।'

তিনি আরও বলেন, 'বিএনপি প্রকাশ্য দিবালোকে জনসভায় হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগের সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ্ এস এম কিবরিয়া ও আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আহসানউল্লাহ্ মাস্টারকে হত্যা করে। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট মুক্তাঙ্গনে আওয়ামী লীগকে জনসভা করার অনুমতি দেয়নি তারা। তারা গ্রেনেড হামলা করার জন্য পরিকল্পিত ভাবে ২০ আগস্ট মাঝরাতে আওয়ামী লীগকে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে জনসভা করার অনুমোদন দেয়। বিএনপি যখনই চেয়েছে আওয়ামী লীগ সরকার সব সময় তাদেরকে মিছিল ও সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে।'

বিএনপি আগামীতে ইতিবাচক রাজনীতি করবে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, 'আমি ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বিএনপিকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। একই সঙ্গে আশা করছি যে, বিএনপি জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ পরিহার করে সাধারণ মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করবে।'

আইএস সম্পর্কিত অপর এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, 'দেশে আইএস এর কোন অস্তিত্ব নেই। কিন্তু জঙ্গিবাদীরা তাদের অস্তিত্বের জানান দিচ্ছে। আমি আশা করি, বিএনপিসহ অন্য রাজনৈতিক দলগুলো তাদের আশ্রয় দেবে না।'

সাম্প্রতিক সড়ক দুর্ঘটনা সম্পর্কিত এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, 'দুর্ঘটনায় কৃষ্ণা রায়ের পা হারানো সত্যিই দুর্ভাগ্যজনক ও অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। এ ঘটনার জন্য দায়ীদের বিচারের আওতায় আনা হবে এবং এ বিষয়ে সরকার কাজ করছে। এটা খুবই উদ্বেগের বিষয় যে, কিছু চালক (সব নয়) বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। আমি কোন অপেশাদার চালক ও হেলপারকে যানবাহন চালাতে না দেওয়ার জন্য বাস, ট্রাক মালিক এসোসিয়েশন ও শ্রমিক ইউনিয়নগুলোর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।' এ সময় তিনি জনগণ ও চালকদেরও আরও সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানান।