spot_img
spot_img

বৃহস্পতিবার, ৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯, সকাল ৬:৪১

সর্বশেষ
বাগমারা প্রেসক্লাবের সভাপতি ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় গ্রেফতার, দ্রুত মুক্তির দাবি মহাসড়কে দুর্ঘটনা রোধে অতিরিক্ত গতির গাড়ির বিরুদ্ধে তৎপর হাইওয়ে পুলিশ মহাসড়কে দুর্ঘটনা প্রতিরোধে হেলমেট পরিধানে উদ্বুদ্ধ করছে হাইওয়ে পুলিশ খুলনায় বিএনপির মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিচার্জ বাগেরহাটে র‌্যাবের ভেজাল বিরোধী অভিযান, তিন প্রতিষ্ঠানকে ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা ইসলামী ব্যাংক ও পার্কভিউ হসপিটাল-এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিঃ ও বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড-এর মধ্যে ‘মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রিপেইড মিটারের বিল প্রদান’ বিষয়ক চুক্তি স্বাক্ষর
প্রচ্ছদকোর্ট কাচারী৩৫ লাখ টাকার জাল নোটসহ গ্রেফতার তিনজন রিমান্ডে

৩৫ লাখ টাকার জাল নোটসহ গ্রেফতার তিনজন রিমান্ডে




বাংলাদেশি জাল নোট ও নোট তৈরির সরঞ্জামাদিসহ গ্রেফতার তিনজনকে একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। তারা হলেন-আলম হোসেন (২৮), সাইফুল ইসলাম ওরফে লামু (৩২) ও মো. রুবেল (২৮)।

রোববার (১৯ জুলাই) তিনজনকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। জাল টাকা উদ্ধারের ঘটনায় করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাদের পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষ ঢাকা মহানগর হাকিম মিল্লাত হোসেন তাদের একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গোয়েন্দা পুলিশের লালবাগ বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মধুসূদন দাস বলেন, বংশাল থানার শহীদ নজরুল ইসলাম সরণির সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের সামনে বাংলাদেশি জাল টাকাসহ কতিপয় ব্যক্তি অবস্থান করছে মর্মে গোপন সংবাদ পাই। এমন তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার সন্ধ্যার দিকে অভিযান পরিচালনা করে মো. আলম হোসেনকে আটক করা হয়। এ সময় আলমের কাছ থেকে তিন লাখ বাংলাদেশি জাল টাকা উদ্ধার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে আলম স্বীকার করেন, তার অপর দুই সহযোগী দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার কালিগঞ্জ পূর্বপাড়ার শহীদ বেলায়েত রোডের একটি বাসায় অবস্থান করছেন এবং তারা সেখানে বাংলাদেশি জাল টাকা তৈরি করেন। এমন তথ্যের ভিত্তিতে গ্রেফতারকৃত আলমকে নিয়ে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের ওই বাসায় গিয়ে দলনেতা সাইফুল ইসলাম ওরফে লামু ও রুবেলকে আটক করা হয়। এ সময় বাসাটি থেকে ৩২ লাখ বাংলাদেশি জাল টাকা ও জাল টাকা তৈরির সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্য সম্পর্কে এসি মধুসূদন দাস বলেন, ‘কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে এই চক্রটি জাল নোট তৈরি করে আসছিল। কোরবানির পশুর হাট, শপিংমল ও অন্যান্য আর্থিক লেনদেনের সময় কৌশলে বাজারে জাল নোট ছেড়ে দেয় এই চক্রের সদস্যরা। এ কাজে তারা সহযোগী হিসেবে সহায়তা নেন হাবিব মোল্লা, জীবন, মজিবুর ও রানা নামের চার ব্যক্তির কাছ থেকে। এসব সহযোগীদের বিরুদ্ধে জালনোটের ব্যবসা করার অভিযোগে মামলাও রয়েছে। পূর্বে ডিবি লালবাগ টিম তাদেরকে গ্রেফতার করে আদারতে প্রেরণ করলে তারা জামিনে মুক্তি পেয়ে পুনরায় জাল টাকার ব্যবসায় জড়িয়েছেন।’







মন্তব্য করুন:

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন

spot_img
spot_img
spot_img

সর্বাধিক পঠিত