spot_img
spot_img

শনিবার, ২১ মে ২০২২, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, সন্ধ্যা ৬:৫৮

সর্বশেষ
বাগমারা প্রেসক্লাবের সভাপতি ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় গ্রেফতার, দ্রুত মুক্তির দাবি মহাসড়কে দুর্ঘটনা রোধে অতিরিক্ত গতির গাড়ির বিরুদ্ধে তৎপর হাইওয়ে পুলিশ মহাসড়কে দুর্ঘটনা প্রতিরোধে হেলমেট পরিধানে উদ্বুদ্ধ করছে হাইওয়ে পুলিশ খুলনায় বিএনপির মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিচার্জ বাগেরহাটে র‌্যাবের ভেজাল বিরোধী অভিযান, তিন প্রতিষ্ঠানকে ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা ইসলামী ব্যাংক ও পার্কভিউ হসপিটাল-এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিঃ ও বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড-এর মধ্যে ‘মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রিপেইড মিটারের বিল প্রদান’ বিষয়ক চুক্তি স্বাক্ষর
প্রচ্ছদমন্ত্রণালয়মানিকগঞ্জের ঘিওরে প্রতারণা ফাঁদে নিঃস্ব শত পরিবার 

মানিকগঞ্জের ঘিওরে প্রতারণা ফাঁদে নিঃস্ব শত পরিবার 




Exif_JPEG_420


মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার বানিয়াজুরী বাসষ্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় ব্যবসায়ী সঞ্চয় সমিতি বেক্সিকো গ্রুপের নামের এক ভুয়া এনজিও লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে লাপাত্তা হয়েছে। জেলার বিভিন্ন অঞ্চলের কয়েকশ সাধারন মানুষজনকে মোটা টাকার লোন দেয়ার কথা বলে ভুয়া ওই সমিতির কথিত পরিচালক জাহাঙ্গীর হোসেন অনুমানিক অর্ধকোটি টাকা নিয়ে পালিয়েছে বলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ। বর্তমানে ভুয়া ওই সমিতির অফিসে তালা ঝুলছে ।

জানা গেছে, নিজের পরিচয় ও ঠিকানা গোপন রেখে জাহাঙ্গীর হোসেন নামে প্রতারক চলতি মাসের ১লা জানুয়ারী বানিয়াজুরী এলাকার আব্দুস সালাম মিয়ার বাড়ির কয়েকটি কক্ষ ভাড়া নেয়। মুখের মিষ্টি কথায় আকৃষ্ট হয়ে ১০-১২ দিনেই কয়েকশ নারী পুরুষ প্রতারনার ফাঁদে পড়ে সমিতির সদস্য হন। এরপর সদস্যদের মাঝে ব্যবসা করার জন্য জনপ্রতি এক লাখ এবং ওপরে ৫লাখ টাকা লোনের অফার দেয় প্রতারক জাহাঙ্গীর। তার সমিতিতে বেশ কয়েকজন নারী কর্মী কাজ করছেন। তাদের ব্যবহার করে সাধারন ও নিরিহ কয়েকশ মানুষ তার প্রতারনার ফাঁদে পা দিয়ে জামানত বাবদ লাখ লাখ টাকা খোয়ায়। সর্বনিম্ন ৮ হাজার এবং সর্বোচ্চ ৩০ হাজার টাকা করে সদস্যদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয় সমিতির পরিচালক।

গত বৃহস্পতিবার সদস্যদের মাঝে লোন দেয়ার কথা ছিল। কিন্ত তার আগেই জাহাঙ্গীর মোটা অংকের টাকা বাগিয়ে নিয়ে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। তার ঠিকানাও কারো জানা নেই। কথা হয় প্রতারনার শিকার বেশ কয়েকজন ভুক্তভোগীর সাথে। ঘিওর উপজেলার ছোট বৈন্যা গ্রামের ক্ষুদে মুদি দোকানদার লুৎফর মোল্লা বলেন, ৩ লাখ টাকা লোন পাওয়ার আশায় ৩০ হাজার টাকা জামানত দিয়েছি। ১৪ জানুয়ারী অর্থাৎ গত বৃহস্পতিবার লোন দেয়ার কথা ছিল। কিন্ত বুধবার অফিসে গিয়ে দেখি আমার মতো শতশত মানুষের ভীড়।

এ ব্যাপারে ঘিওর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ বিপ্লব জানান, গত ১৫/১/২১ জানুয়ারী ভুক্তভোগী নিশা রানী বাদী হয়ে ঘিওর থানায় একটি মামলা করে। মামলা নং ০৬ ধারা ৪০৬/৪২০ মামলার পরপরই আমরা প্রতারক চক্রদের গ্রেফতারের তদন্ত শুরু করি । আমরা বিভিন্ন জায়গায় খোজখবর নিয়ে অবশেষে প্রতারক চক্রের দুইজনকে আশুলিয়া থেকে  গ্রেফতার করতে সঙ্খম হই। এরা সিরাজুল ইসলাম পরশ শিকদার কথিত নাম সুমন ও সম্রাট কথিত নাম বাদলকে ঘিওর থানা হাজতে আনা হয়।এরপর আসামীদের রিমান্ড চেয়ে আদালতে  সোপর্দ করা হয়। বাকী আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

বার্তা প্রেরক
আল মামুন
মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি







মন্তব্য করুন:

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন

spot_img
spot_img
spot_img

সর্বাধিক পঠিত