spot_img
spot_img

মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, রাত ১১:২৬

প্রচ্ছদঅন্যান্যত্বকে কড়া পড়া দূর করতে

ত্বকে কড়া পড়া দূর করতে

এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের চর্মরোগ বিভাগের প্রধান ডা. রাশেদ মোহাম্মদ খান।

কেনো হয়?

এ বিষয়ে ডা. রাশেদ বলেন, “কড়া পড়া হল ত্বকের নিজেকে রক্ষা করার প্রচেষ্টা। ত্বকের কোনো নির্দিষ্ট অংশে নিয়মিত ঘর্ষণ বা চাপ পড়লে ত্বক নিজেকে রক্ষা করার জন্য ওই অংশটিকে পুরু করে ফেলে। আর তখনই কড়া পড়ে। এছাড়াও ত্বক ভেদ করে তীক্ষ্ণ কোনো বস্তু ঢুকে গেলে, ভুল মাপের জুতা বা স্যান্ডেল পরার কারণেও কড়া পড়ে।”

করণীয়

যেখানে কড়া পড়ছে সেখানে যাতে ঘষা বা চাপ না পড়ে সেদিকে নজর রাখতে হবে। নামাজ পড়ার কারণে পায়ে ও কপালে কড়া পড়ে অনেকের। সেক্ষেত্রে নরম জায়নামাজ ব্যবহার করতে হবে।

চিকিৎসা

“কড়া পড়ার চিকিৎসা করা হয় স্যালিসাইলিক অ্যাসিডের মাধ্যমে। কড়া পড়া স্থানে স্যালিসাইলক অ্যাসিড মাখিয়ে আলতো ঘষা দিলে ধীরে ধীরে কড়া নরম হয়ে উঠে আসে। পরে সেখানে লোশন, ভ্যাসলিন, পেট্রোলিয়াম জেলি কিংবা অন্য কোনো ময়েশ্চারাইজার মাখাতে হবে। কড়ার মাত্রা তীব্র হলে ক্রায়োসার্জারি ও লেজারের সাহায্যেও চিকিৎসা করা হয়।” বললেন ডা. রাশেদ মোহাম্মদ খান।

এছাড়াও রুপচর্চাবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে এই বিষয়ের ওপর প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে আরও কয়েকটি পন্থা এখানে দেওয়া হল।

অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট এবং লেবুর রস: অ্যাসপিরিনে থাকা স্যালিসাইলিক অ্যাসিড এবং লেবুর রসের সিট্রাস উপাদান চামড়ার শক্ত অংশ সারিয়ে তুলতে সাহায্য করে।

ছয়টি অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট গুঁড়া করে আধা চামচ লেবুর রস মিশিয়ে পরিমাণ মতো পানিতে গুলিয়ে নিন যেন পেস্ট তৈরি হয়। এবার এই মিশ্রণ একটি পরিষ্কার তুলার সাহায্যে আক্রান্ত অংশে লাগিয়ে নিন। পরিষ্কার কাপড় বা প্লাস্টিকের সাহায্যে ওই অংশ পেঁচিয়ে রাখুন। ১০ থেকে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করে মিশ্রণটি আলতোভাবে পা ঘষুণি বা ‘পিউমিক স্টোন’য়ের সাহায্যে ঘষে উঠিয়ে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

অ্যাপল সাইডার ভিনিগার এবং টি ট্রি অয়েল: এগুলোতে রয়েছে ব্যাকটেরিয়ারোধী এবং জীবাণুনাশক উপাদান যা কড়া পড়া শক্ত চামড়া নরম করে তুলতে সাহায্য করে।

হালকা গরম পানিতে খানিকটা বেইকিং সোডা গুলিয়ে পা ভিজিয়ে রাখুন। এবার পা তুলে ভালোভাবে মুছে অ্যাপল সাইডার ভিনিগারে তুলা ভিজিয়ে শক্ত হয়ে যাওয়া চামড়ার উপর লাগান। কয়েক মিনিট পর কয়েক ফোঁটা টি ট্রি অয়েল লাগিয়ে নিন। টানা কয়েকদিন একই পদ্ধতি অনুসরণ করলে শক্ত হয়ে যাওয়া অংশ আলগা হয়ে উঠে আসবে।

ভিটামিন ই ও জলপাই তেল: ত্বক কোমল রাখতে এই তেল যেমন উপযোগী তেমনি শক্ত হয়ে যাওয়া কড়া সারিয়ে তুলতেও কার্যকর। অন্যদিকে জলপাই তেলে থাকা অলিয়েক অ্যাসিড ত্বকের গভীরে গিয়ে সুস্থ করে তোলে।

জলপাই তেলের সঙ্গে দুএকটি ভিটামিন ই ক্যাপসুলের তেল মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে নিন। এবার কুসুম গরম পানিতে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পা ডুবিয়ে রেখে ভালোভাবে মুছে শক্ত হয়ে যাওয়া অংশে তেলের মিশ্রণ মালিশ করুন। রাতে ঘুমানোর আগে একই প্রক্রিয়ায় চালিয়ে যান যতদিন না পুরোপুরি ভালো হয়। সম্ভব হলে পায়ে মোজা পরে ঘুমান।

মন্তব্য করুন:

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন

spot_img
spot_img
spot_img

সর্বাধিক পঠিত