spot_img
spot_img

বৃহস্পতিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, রাত ৮:৪৭

প্রচ্ছদঅন্যান্যঅর্থ লোপাটে আরও উৎসাহ জোগাবে

অর্থ লোপাটে আরও উৎসাহ জোগাবে

সরকারি আমানতের ২৫ শতাংশ খাওয়া শেষ। এবার ৫০ শতাংশ। এরপর কত? জানতে চাইলেন ব্যাংক ও আর্থিক খাতসংশ্লিষ্টরা। তাদের মতে, যেখানে রোগীর অপারেশন প্রয়োজন সেখানে দেয়া হচ্ছে মলম। তাই এ রোগ কোনোদিন সারবে না। সংকটের উৎপত্তিতে হাত দেয়া হচ্ছে না। 
এ কারণে ব্যাংক লুটেরাদের কোনো বিচার হয়নি। সীমাহীন দুর্নীতি আর ঋণ অনিয়মের কারণে বাড়ছে খেলাপি, তার শাস্তিও হয়নি। তারল্য সংকটের মূল কারণ বেপরোয়া ঋণ। সেটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এমনকি যে ফারমার্স ব্যাংক কেলেঙ্কারির জন্য সরকারি আমানত তুলে নেয়া হয়েছে সেই কেলেঙ্কারির হোতাদের বিচারের আওতায় এনে আজও জেলে পাঠানো হয়নি। উল্টো দেয়া হবে ৫০ শতাংশ আমানত।

কিন্তু এই আমানত যে আবার খেয়ানত করবে না সে গ্যারান্টি কে দেবে? ‘সরকারি আমানতের ৫০ শতাংশ বেসরকারি ব্যাংকে রাখা যাবে’ এমন সিদ্ধান্তের প্রতিক্রিয়ায় আর্থিক খাতের কয়েকজন বিশ্লেষক কাছে এসব অভিমত ব্যক্ত করেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন সিনিয়র ব্যাংকার বলেন, রাষ্ট্রের তত্ত্বাবধানে লুটপাটকে উৎসাহিত করা হচ্ছে। কারণ ব্যাংকিং খাতে এখন পর্যন্ত কোনো লুটপাটকারীর বিচার হয়নি। উল্টো টাকা বের করার আরও সুযোগ দেয়া হচ্ছে। জানতে চাইলে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, এর মাধ্যমে জনগণের টাকা দিয়ে ছিনিমিনি খেলার একটা সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। অতীতে যারা সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকে জনগণের অর্থ নিয়ে ছিনিমিনি খেলেছেন তাদের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। একটি বেসরকারি ব্যাংকের সাবেক প্রধান (চেয়ারম্যান), তার বিরুদ্ধে অনিয়মের ব্যাপক অভিযোগ, কিন্তু তিনি জেলে নন কেন? এসব অপকর্মের সঙ্গে যারা যুক্ত তাদের বিচার না করে কেন আবার সরকারি আমানতের পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে, এটা আমাদের মনে প্রশ্ন জাগায়। তিনি বলেন, এর আগেও দলীয় লোকদের ব্যাংকের পর্ষদে বসিয়ে লুটপাট করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন:

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন

spot_img
spot_img
spot_img

সর্বাধিক পঠিত