spot_img
spot_img

সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, সকাল ৮:৩০

সর্বশেষ
বাগমারা প্রেসক্লাবের সভাপতি ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় গ্রেফতার, দ্রুত মুক্তির দাবি মহাসড়কে দুর্ঘটনা রোধে অতিরিক্ত গতির গাড়ির বিরুদ্ধে তৎপর হাইওয়ে পুলিশ মহাসড়কে দুর্ঘটনা প্রতিরোধে হেলমেট পরিধানে উদ্বুদ্ধ করছে হাইওয়ে পুলিশ খুলনায় বিএনপির মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিচার্জ বাগেরহাটে র‌্যাবের ভেজাল বিরোধী অভিযান, তিন প্রতিষ্ঠানকে ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা ইসলামী ব্যাংক ও পার্কভিউ হসপিটাল-এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিঃ ও বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড-এর মধ্যে ‘মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রিপেইড মিটারের বিল প্রদান’ বিষয়ক চুক্তি স্বাক্ষর
প্রচ্ছদতিন ছাত্রকে র‌্যাবের মারধোর, মধ্যরাতে ঢাবি ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ
Array

তিন ছাত্রকে র‌্যাবের মারধোর, মধ্যরাতে ঢাবি ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইজন ও একটি বেসরকারি কলেজের একজন ছাত্রকে মারধর করে র‌্যাব ধরে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্যসেন, বিজয় একাত্তরসহ কয়েকটি হলের প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থী টিএসসি ও এর আশপাশের এলাকায় বিক্ষোভ করে। এ সময় কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়।
বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ওই তিন শিক্ষার্থীকে ছাড়িয়ে আনার পর রাত ১২টার দিকে পরিস্থিতি শান্ত হয়।
শিক্ষার্থীদের বরাত দিয়ে সহকারী প্রক্টর সোহেল রানা জানান, রাস্তায় সাইড দেয়া নিয়ে ক্ষোভ থেকে মোটরসাইকেল আরোহী তিন শিক্ষার্থী রাত সাড়ে ১০টার দিকে কলাভবনের সামনের রাস্তায় একটি মাইক্রোবাস আটকায়।
তিনি বলেন, তারা চালককে বেরিয়ে আসতে বলেন। চালক তাতে সাড়া না দেয়ায় কথা কাটাকাটির মধ্যে মাইক্রোবাসের একটি লুকিং গ্লাস ভেঙে দেন শিক্ষার্থীরা।
তিনি আরো জানান, মাইক্রোবাসে ছিলেন র‌্যাবের ৮-১০ জন সদস্য। পোশাকধারী ওই র‌্যাব সদস্যরা নেমে শিক্ষার্থীদের মারধর করে। পরে মোটরসাইকেলের চাবিসহ শিক্ষার্থীদের ধরে নিয়ে যায় তারা।
শিক্ষার্থী তিনজন হচ্ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষাবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র কাজী তানভীর, ইংরেজি বিভাগের ইমরান হোসেন ও মুসলিম উদ্দিন হিমেল (মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী)।
প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে জানা যায়, র‌্যাব সদস্যরা ওই তিন শিক্ষার্থীকে বেদম মারধর করে তাদের মাথায় বন্দুক ঠেকায়। তারা ওই শিক্ষার্থীদের বাঁচাতে গেলে র‌্যাব বন্দুক উঁচিয়ে বারণ করে।
শিক্ষার্থীদের র‌্যাব ধরে নেয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন হল থেকে শিক্ষার্থীরা বেরিয়ে এসে বিক্ষোভ শুরু করেন। পুলিশের একটিসহ অন্তত তিনটি গাড়ি তারা ভাংচুর করে বলে প্রত্যক্ষদর্শী শিক্ষার্থীরা জানান। এ সময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা অবিলম্বে তাদের তিন শিক্ষার্থীর মুক্তি দাবি করেন বলে জানা যায়।
তবে ঘটনাটি সম্পর্কে র‌্যাবের মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান জানান, ঘটনাটি ঘটেছে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন কাঁটাবন এলাকায়। রাতে ওই এলাকায় মোটরসাইকেল আরোহী দুই-তিনজন তরুণ যানজটে পড়ে। সেখানে রাস্তার পাশে র‌্যাবের একটি মাইক্রোবাস ও একটি স্টিকারহীন প্রাইভেট কার দাঁড়িয়েছিল। যানজটের জন্য দোষারোপ করে তারা একটি গাড়ির গ্লাস ভেঙে দেয়।
তখন র‌্যাব সদস্যরা এসে গ্লাস ভাঙার কারণ জানতে চাইলে, তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পরিচয় দেয়। কেন গ্লাস ভেঙেছে জানতে চাইলে বলেছে, এটা র‌্যাবের গাড়ি তা তারা জানত না।
রাত সাড়ে ১১টার দিকে মুফতি মাহমুদ বলেন, ওই শিক্ষার্থীদের আটক বা গ্রেপ্তার করা হয়নি। তারা ওই গ্লাস মেরামত করে দিতে চেয়েছে। সে বিষয়ে তাদের সঙ্গে আলোচনাgf চলছে।
পরে র‌্যাব-১০ এর একটি গাড়িতে করে রাত পৌনে ১২টার দিকে ওই শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে পৌঁছে দেয়া হয় বলে সহকারী প্রক্টর সোহেল রানা জানান। এ সময় র‌্যাব সদস্যরা মোটরসাইকেলের চাবিও তার হাতে বুঝিয়ে দেন বলে জানান তিনি। 
সহকারী প্রক্টর বলেন, ক্যাম্পাসের ভেতর থেকে শিক্ষার্থীদের কেন ধরে নেয়া হল সে বিষয়ে র‌্যাবের কাছে ব্যাখ্যা চাইবেন তারা। ছাত্ররা কোনো অপরাধ করলে তারা আমাদের জানাতে পারত। ক্যাম্পাসের মধ্য থেকে ধরে নিয়ে গেল কেন, সে বিষয়ে রোববার তাদের ডাকা হবে। ছাত্রদেরও ওই দিন ডেকে বিষয়টির মীমাংসা করা হবে।

মন্তব্য করুন:

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন

spot_img
spot_img
spot_img

সর্বাধিক পঠিত