spot_img
spot_img

বুধবার, ১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, রাত ১:৪৫

প্রচ্ছদগরমে ভাল থাকার ৮ Health Tips
Array

গরমে ভাল থাকার ৮ Health Tips

 আমরা কম-বেশি সবাই শারীরিক ও মানসিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ি। পরিমিত ও বিশুদ্ধ পানি পান, বাসি-পচা খাবার গ্রহণ না করা, কড়া রোদ এড়িয়ে চলাসহ কিছু নিয়ম সচেতনভাবে মেনে চললে এসব সমস্যা থেকে সহজেই পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব। এই প্রচণ্ড গরমে শিশু ও বৃদ্ধের প্রতি বাড়তি নজর দেওয়া উচিত।

গরমে যেভাবে সুস্থ থাকবেন 

গরম মানুষের স্বাস্থ্যের ওপর ব্যাপক প্রভাব ফেলে। গবেষণায় দেখা গেছে, গরমের সময় মানুষের স্বাস্থ্য সমস্যা বেশি দেখা দেয়। তাই এ সময়ে সতর্ক হয়ে না চললে যেকোনো সময়ই আপনি অসুস্থ হতে পারেন। গরমে সাধারণত যেসব স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দিতে পারে যেমন হিট স্ট্রোক, পানিশূন্যতা, ডায়রিয়া, ঘামাচি, হাম, গরমজনিত সর্দি-কাশি, প্রস্রাবে সংক্রমণ ইত্যাদি।
 গরমে ও আর্দ্রতায় যে কারও শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়ে হিট স্ট্রোক নামক জটিলতা হতে পারে। শরীরের তাপমাত্রা যখন ১০৪ ফারেনহাইট ক্রস করে, তখনই হিট স্ট্রোক হতে পারে। হিট স্ট্রোক এক প্রকার মেডিকেল ইমার্জেন্সি, যেখানে সঙ্গে সঙ্গে রোগীকে চিকিৎসা না দেওয়া হলে রোগী মৃত্যুবরণ করতে পারে। এর লক্ষণ হলো ঘাম না বের হওয়া, ত্বক লাল হয়ে যাওয়া, শুষ্ক হওয়া, হঠাৎ মাথা ব্যথা, মাথা ঘোরা, বমি ভাব, অস্থিরতা, নিশ্বাস নিতে সমস্যা, হৃৎস্পন্দন বেড়ে যাওয়া এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে না থাকা। ছোট বাচ্চা, বয়স্ক লোক, ব্যায়ামবীর বা দিনমজুরদের হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা খুবই বেশি। শিশু ও বৃদ্ধদের তাপনিয়ন্ত্রণক্ষমতা কম থাকায় হিট স্ট্রোকের আশঙ্কা বেড়ে যায়। বয়স্ক ব্যক্তিরা প্রায়ই অন্যান্য রোগে ভুগে থাকেন কিংবা নানা ওষুধ সেবন করেন, যা হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায়
স্ট্রোকে প্রাথমিক চিকিৎসা

আক্রান্ত লোকটিকে ছায়াযুক্ত একটি জায়গায় নিয়ে আসতে হবে, ভারী কাপড় খুলে দিয়ে গায়ে ঠান্ডা পানি ঢালতে হবে। তাকে সম্ভব হলে ফ্যানের নিচে বা এসি রুমে নেওয়া ভালো। এতে গায়ের ঘাম উড়ে যাবে। সম্ভব হলে তার বগল ও রানের খাঁজে বরফ দিতে হবে।

যদি আক্রান্ত লোকটি পানি পানের মতো অবস্থায় থাকে, তাহলে তাকে ঠান্ডা পানি বা পানীয় পান করতে দিন। থার্মোমিটারে শরীরের তাপমাত্রা ১০১-১০২ ডিগ্রি ফারেনহাইটে আসা না পর্যন্ত ঠান্ডা করা চালিয়ে যেতে হবে।

হিট স্ট্রোক প্রতিরোধ

গরমের সময় শরীরকে পানিশূন্য হতে না দেওয়া। শরীরে পানির পরিমাণ স্বাভাবিক রাখতে প্রচুর পরিমাণ পানি, ডাবের পানি, মুখে খাওয়ার স্যালাইন পান করা।

বেশি গরমের সময় ব্যায়াম বা ভারী কায়িক পরিশ্রম না করা।

গরমে বাইরে বের হলে সাদা বা হালকা রঙের কাপড় পরে বাইরে বের হওয়া।

ঘামের সঙ্গে শরীরের লবণ বেরিয়ে যায়, তাই দুর্বল লাগলে খাওয়ার স্যালাইন খাওয়া।

মন্তব্য করুন:

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন

spot_img
spot_img
spot_img

সর্বাধিক পঠিত