spot_img
spot_img

বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯, রাত ১০:১৪

প্রচ্ছদনেপাল ট্র্যাজেডি : ইউএস-বাংলা পেল ৪২ লাখ ডলার
Array

নেপাল ট্র্যাজেডি : ইউএস-বাংলা পেল ৪২ লাখ ডলার

নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ বিধ্বস্তে ক্ষতিপূরণ বাবদ কোম্পানিটির কর্তৃপক্ষ প্রাথমিকভাবে ৪১ লাখ ৭২ হাজার ডলার পেয়েছে। প্রতি ডলার ৮৩ টাকা হিসেবে বাংলাদেশি মুদ্রায় এ অর্থের পরিমাণ ৩৪ কোটি ৬১ লাখ টাকা। তবে দুর্ঘটনায় নিহতের পরিবার এবং আহতরা কি পরিমাণ ক্ষতিপূরণ পাবেন তা এখনো নির্ধারণ হয়নি। তাদের বয়স, আর্থিক ও সামাজিক মর্যাদার ভিত্তিতে এ ক্ষতিপূরণ নির্ধারিত হবে।

নেপাল দুর্ঘটনায় ইউএস-বাংলার ফ্লাইটের ৭১ আরোহীর মধ্যে ৫০ জনের মৃত্যু হয়। তাদের মধ্যে চার ক্রুসহ ২৭ জন ছিলেন বাংলাদেশি। আহত ৯ বাংলাদেশির মধ্যে চারজন এখন ভারত ও সিঙ্গাপুরের হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী, দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে যাত্রীদের বিমার দায়িত্ব বিমান পরিবহন সংস্থাকে নিতে হয়। এভিয়েশন বিমার আওতায় ইউএস-বাংলার যাত্রীসহ সম্পদের ঝুঁকি নিয়েছে সেনাকল্যাণ ইন্স্যুরেন্স। আর সেনাকল্যাণ পুনঃবিমা করেছে সাধারণ বিমা করপোরেশনে। আন্তর্জাতিক এভিয়েশন বিমা করা হয়েছে ‘কে এম দাস্তুর’ নামের একটি ব্রিটিশ বিমা কোম্পানির কাছে। ফলে ক্ষতিপূরণের টাকা এই তিন প্রতিষ্ঠানকে ভাগাভাগি করে দিতে হবে। বিমান দুর্ঘটনার পরপরই ইউএস-বাংলা কর্তৃপক্ষ বিমার দাবি জানিয়ে সেনাকল্যাণ ইন্স্যুরেন্সকে চিঠি দেয়। ওই চিঠি পাওয়ার পর তিন বিমা কোম্পানি তাদের সার্ভেয়ারদের কাঠমান্ডু পাঠায়। ক্ষতি নিরূপণ করে বিমার দাবি দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য রাষ্ট্রায়ত্ত নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষও (আইডিআরএ) তিন বিমা কোম্পানির সঙ্গে বৈঠকে করে। সেনাকল্যাণ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শফিক শামিম সে সময় জানিয়েছিলেন, ইউএস-বাংলার ওই উড়োজাহাজের জন্য যে বিমা করা হয়েছে, তাতে মোট দায় হতে পারে সর্বোচ্চ ১০ কোটি ডলার। এর মধ্যে উড়োজাহাজের জন্য ক্ষতিপূরণ হতে পারে ৭০ লাখ ডলার। আর যাত্রীরা টিকেট কাটলেই বিমার আওতায় চলে আসে।

মন্তব্য করুন:

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন

spot_img
spot_img
spot_img

সর্বাধিক পঠিত